ঢাকা ০২:৩৩ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পাঁচ ঘন্টা হবে এসএসসি পরীক্ষা, সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত

দেবব্রত দত্ত
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : ০১:২৩:০৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ জুলাই ২০২৪ ৭৯ বার পড়া হয়েছে
বাংলা টাইমস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নতুন শিক্ষাক্রমের এসএসসি পরীক্ষার মূল্যায়ন পদ্ধতির চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। দীর্ঘদিন থেকে আলোচনার পর এসএসসির মূল্যায়ন কাঠামো চূড়ান্ত করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। সোমবার (১ জুলাই) বিকেলে মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত জাতীয় শিক্ষাক্রম সমন্বয় কমিটির বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করা হয়েছে।

বর্তমানে যেসব শিক্ষার্থী নবম শ্রেণিতে পড়াশুনা করছে, তারাই প্রথমবারের মতো নতুন শিক্ষাক্রম অনুযায়ী এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেবে। নতুন শিক্ষাক্রমে এসএসসি পরীক্ষা ২০২৬ সালের জানুয়ারিতে নেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে বোর্ডগুলোর। কিন্তু শিক্ষাবর্ষের ৬ মাস চলে গেলেও এটি চূড়ান্ত করতে না পারায় তা নিয়ে অভিভাবকদের মধ্যে বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়েছিলো। অবশেষে তা চূড়ান্ত হলো।

নতুন পদ্ধতি অনুযায়ী সাতটি স্তরে শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করা হবে। সেগুলো হলো -অনন্য, অনুসন্ধানী,অগ্রগামী, অর্জনমুখী, সক্রিয়, বিকাশমান এবং প্রারম্ভিক। প্রতিটি বিষয়ে ৬৫ শতাংশ লিখিত এবং ৩৫ শতাংশ দক্ষতা ভিত্তিক মূল্যায়ন করা হবে।

প্রতিটি বিষয়ের মূল্যায়ন হবে ৫ ঘন্টা করে। এরমধ্যে হবে দুই ঘণ্টা লিখিত মূল্যায়ন। আর বাকি ৩ ঘণ্টা শিক্ষার্থীরা সারাবছর যে ব্যবহারিক কাজ করবে তার উপরে মূল্যায়ন।

ছষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীদেরও একই পদ্ধতিতে মূল্যায়ন হবে। নতুন পদ্ধতিতে কোন শিক্ষার্থী শ্রেণি উপস্থিতি ৭০ ভাগ না হলে ওই এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবে না। সেইসাথে তিনটি বিষয়ের মূল্যায়ন যদি ছষ্ঠ স্তরের বিকাশমান পর্যায়ে থাকে তাহলে তাকে অকৃতকার্য হিসেবে ধরা হবে। সে পরবর্তী শ্রেণিতে উঠতে পারবে না।

এসএসসিত পরীক্ষায় কেউ যদি দুই বিষয়ে ফেল করে তাহলে সে কলেজে ভর্তি হতে পারবে। তবে পরবর্তী বছর তাকে এই দুই বিষয়ের পরীক্ষা দিতে হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

পাঁচ ঘন্টা হবে এসএসসি পরীক্ষা, সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত

সংবাদ প্রকাশের সময় : ০১:২৩:০৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ জুলাই ২০২৪

নতুন শিক্ষাক্রমের এসএসসি পরীক্ষার মূল্যায়ন পদ্ধতির চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। দীর্ঘদিন থেকে আলোচনার পর এসএসসির মূল্যায়ন কাঠামো চূড়ান্ত করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। সোমবার (১ জুলাই) বিকেলে মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত জাতীয় শিক্ষাক্রম সমন্বয় কমিটির বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করা হয়েছে।

বর্তমানে যেসব শিক্ষার্থী নবম শ্রেণিতে পড়াশুনা করছে, তারাই প্রথমবারের মতো নতুন শিক্ষাক্রম অনুযায়ী এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেবে। নতুন শিক্ষাক্রমে এসএসসি পরীক্ষা ২০২৬ সালের জানুয়ারিতে নেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে বোর্ডগুলোর। কিন্তু শিক্ষাবর্ষের ৬ মাস চলে গেলেও এটি চূড়ান্ত করতে না পারায় তা নিয়ে অভিভাবকদের মধ্যে বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়েছিলো। অবশেষে তা চূড়ান্ত হলো।

নতুন পদ্ধতি অনুযায়ী সাতটি স্তরে শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করা হবে। সেগুলো হলো -অনন্য, অনুসন্ধানী,অগ্রগামী, অর্জনমুখী, সক্রিয়, বিকাশমান এবং প্রারম্ভিক। প্রতিটি বিষয়ে ৬৫ শতাংশ লিখিত এবং ৩৫ শতাংশ দক্ষতা ভিত্তিক মূল্যায়ন করা হবে।

প্রতিটি বিষয়ের মূল্যায়ন হবে ৫ ঘন্টা করে। এরমধ্যে হবে দুই ঘণ্টা লিখিত মূল্যায়ন। আর বাকি ৩ ঘণ্টা শিক্ষার্থীরা সারাবছর যে ব্যবহারিক কাজ করবে তার উপরে মূল্যায়ন।

ছষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীদেরও একই পদ্ধতিতে মূল্যায়ন হবে। নতুন পদ্ধতিতে কোন শিক্ষার্থী শ্রেণি উপস্থিতি ৭০ ভাগ না হলে ওই এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবে না। সেইসাথে তিনটি বিষয়ের মূল্যায়ন যদি ছষ্ঠ স্তরের বিকাশমান পর্যায়ে থাকে তাহলে তাকে অকৃতকার্য হিসেবে ধরা হবে। সে পরবর্তী শ্রেণিতে উঠতে পারবে না।

এসএসসিত পরীক্ষায় কেউ যদি দুই বিষয়ে ফেল করে তাহলে সে কলেজে ভর্তি হতে পারবে। তবে পরবর্তী বছর তাকে এই দুই বিষয়ের পরীক্ষা দিতে হবে।