ঢাকা ০৬:১২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পরীমনি কাণ্ডে চাকরি হারাচ্ছেন সাবেক এডিসি সাকলায়েন

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : ০৭:৫২:৩৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪ ৩০ বার পড়া হয়েছে
বাংলা টাইমস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

ঢাকাই সিনেমর আলোচিত নায়িকা পরীমনির সাথে ‘বিবাহবহির্ভূত অনৈতিক সম্পর্ক’ স্থাপনের অভিযোগে চাকরি হারাচ্ছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) গুলশানে বিভাগের সাবেক উপ-কমিশনার (এডিসি) গোলাম সাকলায়েন।

গোলাম সাকলায়েনকে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানোর প্রাথমিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এ বিষয়ে বাংলাদেশ কর্ম কমিশনের (পিএসসি) মতামত চেয়েছে তারা।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে পিএসসিকে দেয়া এক চিঠিতে বলা হয়, তদন্তে উঠে এসেছে, ঢাকাই সিনেমার নায়িকা পরীমনির সাথে সাকলায়েনের বিবাহবহির্ভূত অনৈতিক সম্পর্ক ছিলো। সাকলায়েন পরীমনির বাসায় গিয়ে থাকতেন। সাকলায়েনের স্ত্রী তার সরকারি বাসায় না থাকার সময় পরীমনি গিয়ে রাতযাপন করেছেন।

১৩ জুন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ থেকে পিএসসিকে চিঠি দেয়া হয়েছে। চিঠিতে বলা হয়েছে, সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা-২০১৮ অনুযায়ী ‘অসদাচরণের’ কারণে সাকলায়েনকে ‘গুরুদণ্ড’ হিসেবে চাকরি থেকে বাধ্যতামূলক অবসর প্রদানের প্রাথমিক সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে।

পরীমনিকাণ্ডের পর আলোচনায় আসা সাকলায়েনকে ডিএমপির ডিবি থেকে সরিয়ে মিরপুরের পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেন্টে সংযুক্ত করা হয়। এরপর সেখান থেকে তাকে ঝিনাইদহ ইন-সার্ভিস ট্রেইনিং সেন্টারে বদলি করা হয়। বর্তমানে তিনি ঝিনাইদহে পুলিশের ইন-সার্ভিস ট্রেনিং সেন্টারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।,,

এদিকে, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চিঠিতে বলা হয়েছে, সাকলায়েন ডিবির গুলশান বিভাগে থাকার সময় নায়িকা পরীমনির সাথে ঘটনাক্রমে তার দেখা হয় এবং এরপর যোগাযোগ শুরু হয়। এর ধারাবাহিকতায় তিনি নায়িকা পরীমনির বাসায় নিয়মিত রাতযাপন করতে শুরু করেন।

পুলিশ অধিদপ্তরের এলআইসি শাখা থেকে পাওয়া সাকলায়েনের মুঠোফোনের সিডিআর বিশ্লেষণ করে তদন্তকারীরা দেখেছেন, ২০২১ সালের ৪ জুলাই থেকে পরের একমাসে সাকলায়েন দিনে ওরাতে নায়িকা পরীমনির বাসায় অবস্থান করেছেন।

নায়িকা পরীমনির মুঠোফোনের ফরেনসিক প্রতিবেদন পর্যালোচনায় তদন্তকারীরা দেখেছেন, পরীমনির সাথে সাকলায়েনের কথোপকথন চলতো। তা সাধারণ পেশাগত প্রয়োজনে স্থাপিত কোনো সম্পর্কের নয়, বরং অনৈতিক প্রেমের সম্পর্ক।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চিঠিতে বলা হয়, ঢাকার রাজারবাগ মধুমতি পুলিশ অফিসার্স কোয়ার্টার্সে নায়িকা পরীমনির যাতায়াতের সিসিটিভি ফুটেজ আছে। এর ফরেনসিক প্রতিবেদন বিশ্লেষণে ও সাক্ষীদের জবানবন্দি অনুযায়ী প্রতীয়মান সাকলায়েনের পূর্বপরিকল্পনা ও সম্পূর্ণ জ্ঞাতসারে তার স্ত্রী না থাকা অবস্থায় নায়িকা পরীমনি সাকলায়েনের রাজারবাগের সরকারি বাসায় যান। সেখানে প্রায় ১৭ ঘণ্টা অবস্থান করে ২০২১ সালের ২ আগস্ট রাত দেড়টায় পরীমনি বাসাটি ত্যাগ করেন।

সাকলায়েন পুলিশের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা হয়ে সরকারি দায়িত্বের বাইরে নায়িকা পরীমনির সাথে অতিমাত্রায় ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক স্থাপন করেছিলেন। এ তথ্য উল্লেখ করা হয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চিঠিতে। চিঠিতে বলা হয়েছে, সাকলায়েন বিবাহিত ও এক সন্তানের জনক। এরপরও পরীমনির সাথে তার বিবাহবহির্ভূত অনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন, পরীমনির সাথে জন্মদিন উদ্‌যাপন এবং নিজের সরকারি বাসভবনে নিজ স্ত্রীর অবর্তমানে সময় কাটানোর মতো ঘটনা সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করেছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, পরিমনিকান্ডের ঘটনায় সাকলায়েনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা হয়েছে। তাকে কারণ দর্শানো সুযোগ দেয়া হয়েছে। তিনি অভিযোগ থেকে অব্যাহতির দাবি করেছিলেন।

২০২১ সালের ৯ জুন রাতে সাভার থানার ঢাকা বোট ক্লাবে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ এন ১৪ জুন ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন মাহমুদের বিরুদ্ধে মামলা করেছিলেন পরীমনি। সেই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ছিলেন সাকলায়েন। পরীমনির সাথে সম্পর্কের অভিযোগ ওঠার পর তাকে বদলি করা হয়েছিলো। সেই সাথে তদন্ত কমিটিও হয়েছিলো।

২০২১ সালের ১৮ জুলাই পরীমনির বিরুদ্ধে নাসির উদ্দিন মাহমুদ হত্যাচেষ্টা, মারধর, ভাঙচুর ও ভয়ভীতি দেখানোর অভিযোগে আদালতে মামলা করেন। ২০২১ সালের ৪ আগস্ট পরীমনির বনানীর বাসায় অভিযান চালায় র‌্যাব। পরে তাকে বিদেশি মদসহ গ্রেপ্তার করা হয়। এ মামলায় তিন দফায় মোট ৭ দিন তাকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। গ্রেপ্তারের ২৭ দিন পর ১ সেপ্টেম্বর পরীমনি কারাগার থেকে জামিনে মুক্ত হন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

পরীমনি কাণ্ডে চাকরি হারাচ্ছেন সাবেক এডিসি সাকলায়েন

সংবাদ প্রকাশের সময় : ০৭:৫২:৩৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪

ঢাকাই সিনেমর আলোচিত নায়িকা পরীমনির সাথে ‘বিবাহবহির্ভূত অনৈতিক সম্পর্ক’ স্থাপনের অভিযোগে চাকরি হারাচ্ছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) গুলশানে বিভাগের সাবেক উপ-কমিশনার (এডিসি) গোলাম সাকলায়েন।

গোলাম সাকলায়েনকে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানোর প্রাথমিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এ বিষয়ে বাংলাদেশ কর্ম কমিশনের (পিএসসি) মতামত চেয়েছে তারা।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে পিএসসিকে দেয়া এক চিঠিতে বলা হয়, তদন্তে উঠে এসেছে, ঢাকাই সিনেমার নায়িকা পরীমনির সাথে সাকলায়েনের বিবাহবহির্ভূত অনৈতিক সম্পর্ক ছিলো। সাকলায়েন পরীমনির বাসায় গিয়ে থাকতেন। সাকলায়েনের স্ত্রী তার সরকারি বাসায় না থাকার সময় পরীমনি গিয়ে রাতযাপন করেছেন।

১৩ জুন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ থেকে পিএসসিকে চিঠি দেয়া হয়েছে। চিঠিতে বলা হয়েছে, সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা-২০১৮ অনুযায়ী ‘অসদাচরণের’ কারণে সাকলায়েনকে ‘গুরুদণ্ড’ হিসেবে চাকরি থেকে বাধ্যতামূলক অবসর প্রদানের প্রাথমিক সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে।

পরীমনিকাণ্ডের পর আলোচনায় আসা সাকলায়েনকে ডিএমপির ডিবি থেকে সরিয়ে মিরপুরের পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেন্টে সংযুক্ত করা হয়। এরপর সেখান থেকে তাকে ঝিনাইদহ ইন-সার্ভিস ট্রেইনিং সেন্টারে বদলি করা হয়। বর্তমানে তিনি ঝিনাইদহে পুলিশের ইন-সার্ভিস ট্রেনিং সেন্টারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।,,

এদিকে, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চিঠিতে বলা হয়েছে, সাকলায়েন ডিবির গুলশান বিভাগে থাকার সময় নায়িকা পরীমনির সাথে ঘটনাক্রমে তার দেখা হয় এবং এরপর যোগাযোগ শুরু হয়। এর ধারাবাহিকতায় তিনি নায়িকা পরীমনির বাসায় নিয়মিত রাতযাপন করতে শুরু করেন।

পুলিশ অধিদপ্তরের এলআইসি শাখা থেকে পাওয়া সাকলায়েনের মুঠোফোনের সিডিআর বিশ্লেষণ করে তদন্তকারীরা দেখেছেন, ২০২১ সালের ৪ জুলাই থেকে পরের একমাসে সাকলায়েন দিনে ওরাতে নায়িকা পরীমনির বাসায় অবস্থান করেছেন।

নায়িকা পরীমনির মুঠোফোনের ফরেনসিক প্রতিবেদন পর্যালোচনায় তদন্তকারীরা দেখেছেন, পরীমনির সাথে সাকলায়েনের কথোপকথন চলতো। তা সাধারণ পেশাগত প্রয়োজনে স্থাপিত কোনো সম্পর্কের নয়, বরং অনৈতিক প্রেমের সম্পর্ক।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চিঠিতে বলা হয়, ঢাকার রাজারবাগ মধুমতি পুলিশ অফিসার্স কোয়ার্টার্সে নায়িকা পরীমনির যাতায়াতের সিসিটিভি ফুটেজ আছে। এর ফরেনসিক প্রতিবেদন বিশ্লেষণে ও সাক্ষীদের জবানবন্দি অনুযায়ী প্রতীয়মান সাকলায়েনের পূর্বপরিকল্পনা ও সম্পূর্ণ জ্ঞাতসারে তার স্ত্রী না থাকা অবস্থায় নায়িকা পরীমনি সাকলায়েনের রাজারবাগের সরকারি বাসায় যান। সেখানে প্রায় ১৭ ঘণ্টা অবস্থান করে ২০২১ সালের ২ আগস্ট রাত দেড়টায় পরীমনি বাসাটি ত্যাগ করেন।

সাকলায়েন পুলিশের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা হয়ে সরকারি দায়িত্বের বাইরে নায়িকা পরীমনির সাথে অতিমাত্রায় ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক স্থাপন করেছিলেন। এ তথ্য উল্লেখ করা হয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চিঠিতে। চিঠিতে বলা হয়েছে, সাকলায়েন বিবাহিত ও এক সন্তানের জনক। এরপরও পরীমনির সাথে তার বিবাহবহির্ভূত অনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন, পরীমনির সাথে জন্মদিন উদ্‌যাপন এবং নিজের সরকারি বাসভবনে নিজ স্ত্রীর অবর্তমানে সময় কাটানোর মতো ঘটনা সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করেছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, পরিমনিকান্ডের ঘটনায় সাকলায়েনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা হয়েছে। তাকে কারণ দর্শানো সুযোগ দেয়া হয়েছে। তিনি অভিযোগ থেকে অব্যাহতির দাবি করেছিলেন।

২০২১ সালের ৯ জুন রাতে সাভার থানার ঢাকা বোট ক্লাবে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ এন ১৪ জুন ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন মাহমুদের বিরুদ্ধে মামলা করেছিলেন পরীমনি। সেই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ছিলেন সাকলায়েন। পরীমনির সাথে সম্পর্কের অভিযোগ ওঠার পর তাকে বদলি করা হয়েছিলো। সেই সাথে তদন্ত কমিটিও হয়েছিলো।

২০২১ সালের ১৮ জুলাই পরীমনির বিরুদ্ধে নাসির উদ্দিন মাহমুদ হত্যাচেষ্টা, মারধর, ভাঙচুর ও ভয়ভীতি দেখানোর অভিযোগে আদালতে মামলা করেন। ২০২১ সালের ৪ আগস্ট পরীমনির বনানীর বাসায় অভিযান চালায় র‌্যাব। পরে তাকে বিদেশি মদসহ গ্রেপ্তার করা হয়। এ মামলায় তিন দফায় মোট ৭ দিন তাকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। গ্রেপ্তারের ২৭ দিন পর ১ সেপ্টেম্বর পরীমনি কারাগার থেকে জামিনে মুক্ত হন।