ঢাকা ১১:৩৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

এনবিআর থেকে সরানো হলো ফয়সালকে

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ১২:০৭:৩৫ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৫ জুলাই ২০২৪ ১৯ বার পড়া হয়েছে
বাংলা টাইমস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) প্রথম সচিব (কর) ও বিসিএস (কর) ক্যাডারের কর্মকর্তা কাজী আবু মাহমুদ ফয়সালকে দুর্নীতির দায়ে এনবিআর থেকে ‘অবমুক্ত’ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই) বিকালে এ সংক্রান্ত আদেশ জারি করা হয়েছে। এর আগে চলতি বছরের ৩০ জুন কাজী আবু মাহমুদ ফয়সালকে বগুড়া কর অঞ্চলের পরিদর্শী রেঞ্জ-১ এ বদলি করা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে তাকে রিলিজ দিয়েছে এনবিআর।

দুদকের নথিতে বলা হয়, ফয়সাল, তার স্ত্রী আফসানা জেসমিন, ফয়সালের ভাই কাজী খালিদ হাসান, শাশুড়ি মমতাজ বেগম, মামাশ্বশুর শেখ নাসির উদ্দিন, শ্যালক আফতাব আলী, শ্বশুর আহম্মেদ আলী, খালাশাশুড়ি মাহমুদা হাসান, আত্মীয় খন্দকার হাফিজুর রহমান, রওশন আরা খাতুন ও ফারহানা আফরোজের নামে ব্যাংক হিসাব খুলে অপরাধলব্ধ আয় লেনদেন করা হয়েছে।

এর মধ্যে ফয়সালের নামে ৬টি ব্যাংক অ্যাকাউন্টে পাঁচ কোটি ২১ লাখ ও ফয়সালের স্ত্রী আফসানা জেসমিনের ৫টি ব্যাংক হিসাবে দুই কোটি ২৫ লাখ টাকা জমা হয়। ফয়সালের শ্বশুর আহম্মেদ আলীর ৮টি ব্যাংক হিসাবে জমা হয় ১১ কোটি ৫৭ লাখ টাকা। শাশুড়ি মমতাজ বেগমের নামে ১০টি ব্যাংক হিসাবে সাত কোটি টাকা জমা হয়। এছাড়া ফয়সালের শ্যালক আফতাব আলীর ছয়টি ব্যাংক হিসাবে জমা হয়েছে এক কোটি ৫৫ লাখ টাকা।

ফয়সাল, তার স্ত্রী, শ্বশুর ও তার স্বজনদের ১৯টি ব্যাংক ও একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানের হিসাবে এখনো প্রায় সাত কোটি টাকা স্থিতি আছে। এছাড়া তাদের নামে রয়েছে দুই কোটি ৫৫ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

এনবিআর থেকে সরানো হলো ফয়সালকে

আপডেট সময় : ১২:০৭:৩৫ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৫ জুলাই ২০২৪

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) প্রথম সচিব (কর) ও বিসিএস (কর) ক্যাডারের কর্মকর্তা কাজী আবু মাহমুদ ফয়সালকে দুর্নীতির দায়ে এনবিআর থেকে ‘অবমুক্ত’ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই) বিকালে এ সংক্রান্ত আদেশ জারি করা হয়েছে। এর আগে চলতি বছরের ৩০ জুন কাজী আবু মাহমুদ ফয়সালকে বগুড়া কর অঞ্চলের পরিদর্শী রেঞ্জ-১ এ বদলি করা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে তাকে রিলিজ দিয়েছে এনবিআর।

দুদকের নথিতে বলা হয়, ফয়সাল, তার স্ত্রী আফসানা জেসমিন, ফয়সালের ভাই কাজী খালিদ হাসান, শাশুড়ি মমতাজ বেগম, মামাশ্বশুর শেখ নাসির উদ্দিন, শ্যালক আফতাব আলী, শ্বশুর আহম্মেদ আলী, খালাশাশুড়ি মাহমুদা হাসান, আত্মীয় খন্দকার হাফিজুর রহমান, রওশন আরা খাতুন ও ফারহানা আফরোজের নামে ব্যাংক হিসাব খুলে অপরাধলব্ধ আয় লেনদেন করা হয়েছে।

এর মধ্যে ফয়সালের নামে ৬টি ব্যাংক অ্যাকাউন্টে পাঁচ কোটি ২১ লাখ ও ফয়সালের স্ত্রী আফসানা জেসমিনের ৫টি ব্যাংক হিসাবে দুই কোটি ২৫ লাখ টাকা জমা হয়। ফয়সালের শ্বশুর আহম্মেদ আলীর ৮টি ব্যাংক হিসাবে জমা হয় ১১ কোটি ৫৭ লাখ টাকা। শাশুড়ি মমতাজ বেগমের নামে ১০টি ব্যাংক হিসাবে সাত কোটি টাকা জমা হয়। এছাড়া ফয়সালের শ্যালক আফতাব আলীর ছয়টি ব্যাংক হিসাবে জমা হয়েছে এক কোটি ৫৫ লাখ টাকা।

ফয়সাল, তার স্ত্রী, শ্বশুর ও তার স্বজনদের ১৯টি ব্যাংক ও একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানের হিসাবে এখনো প্রায় সাত কোটি টাকা স্থিতি আছে। এছাড়া তাদের নামে রয়েছে দুই কোটি ৫৫ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র।