ঢাকা ০৪:২৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মানচিত্র থেকে হারিয়ে যাচ্ছে নীলকমল

চাঁদপুর প্রতিনিধি
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : ১২:৫৮:০৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪ ২৪ বার পড়া হয়েছে
বাংলা টাইমস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

মানচিত্র থেকে হারিয়ে যাচ্ছে নীলকমল ইউনিয়ন। মেঘনার ভাঙন রোধে স্থায়ী বাঁধের দাবিতে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

চাঁদপুর জেলার হাইমচর উপজেলার ৪নং নীলকমল ইউনিয়নের প্রায় ৩ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে মেঘনার ভয়াবহ ভাঙন দেখা দিয়েছে। ভাঙন প্রতিরোধে স্থায়ী বাঁধের দাবিতে মানববন্ধন করেন এলাকাবাসীসহ সর্বস্তরের জনগণ।

শনিবার (২২ জুন) দুপুরে ৪নং নীলকমল ইউনিয়নের ঈশানবালা লঞ্চঘাটে গিয়ে দেখা যায়, ভাঙনের শিকারে ভিটে মাটি হারা কৃষক পরিবারসহ নারী-পুরুষ,শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও বিভিন্ন শ্রেণির লোকজন মানববন্ধন করেন। সেখানে ভাঙন রোধে হেয়ালিপানা কেনো তা নিয়ে উপস্থিত মানুষের নানাহ অভিযোগ।

বিগত কয়েক বছরে ঈশানবালার মুল বাজারসহ হাজারো মানুষের বসত ভিটে ঘর বাড়ি সরকারি প্রতিষ্ঠানসহ কৃষি জমি মেঘনায় ভেঙে বিলীন হয়েছে । প্রতি বারই ভাঙন রোধ করার আশ্বাস থাকলেও তাহা কার্যকর না হওয়ায় উত্তাল মেঘনার গর্ভে বিলীন হয়ে যাচ্ছে নদী বেষ্টিত এই ইউনিয়নটি। প্রতিরোধে বালুভর্তি একটিও জিও বস্তা ফেলা হয়নি সেখানকার ভাংগনস্থানে।
ফলে দিনের পর দিন মেঘনার ভাঙন অব্যাহত রয়েছে এখানে।

ভাঙ্গন কবলিত এলাকার জনপ্রতিনিধি ও এলাকাবাসী বলেন, গত কয়েক বছর মেঘনা নদীর অব্যাহত ভাঙনে ফসলি জমি, বসতবাড়ী, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ, পুলিশ ফাঁড়িসহ বহু স্থাপনা নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এলাকার প্রত্যেকটি পরিবার ৬-৭ বার নদী ভাঙনের শিকার। সহায় সম্পত্তি হারিয়ে অনেকে এখন ছিন্নমূল।

নীলকমল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাউদ আল নাসের বলেন, ইউনিয়নের ৪টি ওয়ার্ডের মধ্যে অধিকাংশ এলাকা কয়েক বছরের ভাঙনে নদী গর্ভে। চলতি বর্ষা মৌসুমে বহু স্থাপনা ভেঙে গেছে। সরকার এই ভাঙন প্রতিরোধে দ্রুত ব্যবস্থা না করলে উপজেলার মানচিত্র থেকে এই ইউনিয়ন হারিয়ে যাবার আশঙ্কা রয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

মানচিত্র থেকে হারিয়ে যাচ্ছে নীলকমল

সংবাদ প্রকাশের সময় : ১২:৫৮:০৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪

মানচিত্র থেকে হারিয়ে যাচ্ছে নীলকমল ইউনিয়ন। মেঘনার ভাঙন রোধে স্থায়ী বাঁধের দাবিতে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

চাঁদপুর জেলার হাইমচর উপজেলার ৪নং নীলকমল ইউনিয়নের প্রায় ৩ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে মেঘনার ভয়াবহ ভাঙন দেখা দিয়েছে। ভাঙন প্রতিরোধে স্থায়ী বাঁধের দাবিতে মানববন্ধন করেন এলাকাবাসীসহ সর্বস্তরের জনগণ।

শনিবার (২২ জুন) দুপুরে ৪নং নীলকমল ইউনিয়নের ঈশানবালা লঞ্চঘাটে গিয়ে দেখা যায়, ভাঙনের শিকারে ভিটে মাটি হারা কৃষক পরিবারসহ নারী-পুরুষ,শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও বিভিন্ন শ্রেণির লোকজন মানববন্ধন করেন। সেখানে ভাঙন রোধে হেয়ালিপানা কেনো তা নিয়ে উপস্থিত মানুষের নানাহ অভিযোগ।

বিগত কয়েক বছরে ঈশানবালার মুল বাজারসহ হাজারো মানুষের বসত ভিটে ঘর বাড়ি সরকারি প্রতিষ্ঠানসহ কৃষি জমি মেঘনায় ভেঙে বিলীন হয়েছে । প্রতি বারই ভাঙন রোধ করার আশ্বাস থাকলেও তাহা কার্যকর না হওয়ায় উত্তাল মেঘনার গর্ভে বিলীন হয়ে যাচ্ছে নদী বেষ্টিত এই ইউনিয়নটি। প্রতিরোধে বালুভর্তি একটিও জিও বস্তা ফেলা হয়নি সেখানকার ভাংগনস্থানে।
ফলে দিনের পর দিন মেঘনার ভাঙন অব্যাহত রয়েছে এখানে।

ভাঙ্গন কবলিত এলাকার জনপ্রতিনিধি ও এলাকাবাসী বলেন, গত কয়েক বছর মেঘনা নদীর অব্যাহত ভাঙনে ফসলি জমি, বসতবাড়ী, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ, পুলিশ ফাঁড়িসহ বহু স্থাপনা নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এলাকার প্রত্যেকটি পরিবার ৬-৭ বার নদী ভাঙনের শিকার। সহায় সম্পত্তি হারিয়ে অনেকে এখন ছিন্নমূল।

নীলকমল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাউদ আল নাসের বলেন, ইউনিয়নের ৪টি ওয়ার্ডের মধ্যে অধিকাংশ এলাকা কয়েক বছরের ভাঙনে নদী গর্ভে। চলতি বর্ষা মৌসুমে বহু স্থাপনা ভেঙে গেছে। সরকার এই ভাঙন প্রতিরোধে দ্রুত ব্যবস্থা না করলে উপজেলার মানচিত্র থেকে এই ইউনিয়ন হারিয়ে যাবার আশঙ্কা রয়েছে।