ঢাকা ০৪:০৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রাণে রক্ষা পেলেও গৃহহীন একটি পরিবার

ঝালকাঠি প্রতিনিধি
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : ১২:০৬:৩৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩০ জুন ২০২৪ ৬৪ বার পড়া হয়েছে
বাংলা টাইমস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

ঝালকাঠির নলছিটিতে প্রতিবেশীর খামখেয়ালীতে গৃহহীন একটি পরিবার। অল্পের জন্য পরিবারসহ প্রালে রক্ষা পেয়েছেন। এ ব্যাপারে ভুক্তভোগী মো. বাহাদুর নলছিটি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার মগড় ইউনিয়নের করুয়াকাঠি গ্রামের বাসিন্দা মো. বাহাদুরের বসতঘরের পাশেই প্রতিবেশী মো. খোকন হাওলাদারের বিশাল আকৃতির চাম্বল ও মেহেরগনি গাছ ছিলো। যা ঘূর্ণিঝড় রেমালের কারণে তাদের বসতঘরের উপর পরে ঘরটি দুমড়েমুচড়ে যায়। ঝড়ের সময় তারা পরিস্থিতি খারাপ দেখে অন্য এক ঘরে আশ্রয় নেয়ায় প্রাণে বেঁচে যায়।

এ ব্যাপারে ভুক্তভোগী মো. বাহাদুর জানান, আমার প্রতিবেশী মো. খোকন হাওলাদারের কয়েকটি গাছ আমার বসতঘরের পাশেই ছিল। গাছগুলো বিশাল আকার হওয়ায় আমাদের নিরাপত্তার স্বার্থে তাদেরকে গাছের ডালপালা কেটে দিতে বলেছিলাম তারা সেটা করেনি। তারা বরং উল্টো আমাদের বিভিন্ন ধরনের হুমকি দিয়ে কথা বলতে থাকেন। এখন ঝড় রেমালের কারণে তাদের গাছ উপড়ে পরে আমার বসতঘর নিশ্চিহ্ন হয়ে গিয়েছে। বর্তমানে আমার পরিবার খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছে।

এ ব্যাপারে নলছিটি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. নজরুল ইসলাম জানান, লিখিত অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

প্রাণে রক্ষা পেলেও গৃহহীন একটি পরিবার

সংবাদ প্রকাশের সময় : ১২:০৬:৩৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩০ জুন ২০২৪

ঝালকাঠির নলছিটিতে প্রতিবেশীর খামখেয়ালীতে গৃহহীন একটি পরিবার। অল্পের জন্য পরিবারসহ প্রালে রক্ষা পেয়েছেন। এ ব্যাপারে ভুক্তভোগী মো. বাহাদুর নলছিটি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার মগড় ইউনিয়নের করুয়াকাঠি গ্রামের বাসিন্দা মো. বাহাদুরের বসতঘরের পাশেই প্রতিবেশী মো. খোকন হাওলাদারের বিশাল আকৃতির চাম্বল ও মেহেরগনি গাছ ছিলো। যা ঘূর্ণিঝড় রেমালের কারণে তাদের বসতঘরের উপর পরে ঘরটি দুমড়েমুচড়ে যায়। ঝড়ের সময় তারা পরিস্থিতি খারাপ দেখে অন্য এক ঘরে আশ্রয় নেয়ায় প্রাণে বেঁচে যায়।

এ ব্যাপারে ভুক্তভোগী মো. বাহাদুর জানান, আমার প্রতিবেশী মো. খোকন হাওলাদারের কয়েকটি গাছ আমার বসতঘরের পাশেই ছিল। গাছগুলো বিশাল আকার হওয়ায় আমাদের নিরাপত্তার স্বার্থে তাদেরকে গাছের ডালপালা কেটে দিতে বলেছিলাম তারা সেটা করেনি। তারা বরং উল্টো আমাদের বিভিন্ন ধরনের হুমকি দিয়ে কথা বলতে থাকেন। এখন ঝড় রেমালের কারণে তাদের গাছ উপড়ে পরে আমার বসতঘর নিশ্চিহ্ন হয়ে গিয়েছে। বর্তমানে আমার পরিবার খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছে।

এ ব্যাপারে নলছিটি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. নজরুল ইসলাম জানান, লিখিত অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।