ঢাকা ০২:৩৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পর্যটক টানতে কুয়াকাটা সৈকতে নতুনত্বের ছোঁয়া

উত্তম কুমার হাওলাদার,পটুয়াখালী
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : ০১:৩৯:৪৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪ ৪৪ বার পড়া হয়েছে
বাংলা টাইমস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

কোরবানির ঈদ উপলক্ষে পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটায় পর্যটক বরণে প্রস্তুতি নিয়েছে পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা। আবাসিক হোটেল-মোটেলগুলো সেজেছে বাহারি সাজে। সৈকতের ছাতা-বেঞ্চে লেগেছে নতুনত্বের ছোঁয়া। ব্যস্ত সময় পার করছেন পর্যটকদের সেবায় নিয়োজিত ১৬টি পেশার ব্যবসায়ী ও কর্মীরা।

পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা বলছেন, এবার ঈদের ছুটিতে কুয়াকাটা সৈকতে লাখো পর্যটকদের আগমন ঘটবে। আগত পর্যটকদের নিরাপত্তায় ট্যুরিস্ট পুলিশ সার্বিক ব্যবস্থা নিয়েছে।

জানা গেছে, পর্যটকদের দৃষ্টি কাড়তে ঝাউবন, লেম্বুরবন, শুঁটকিপল্লী, কুয়াকাটা জাতীয় উদ্যানসহ দর্শনীয় স্পটগুলো পরিপাটি করে সাজানো হয়েছে। দীর্ঘ ফাঁকা সৈকত ঝকঝকে করা হয়েছে।্এবার বর্ষার শুরুতে সৈকতে উঁচু ঢেউ ও মনোরম দৃশ্য নজর কাড়বে ভ্রমণপ্রেমি পর্যটকদের।

ব্যবসায়ীরা জানান, পর্যটকদের সর্বোচ্চ সুযোগ-সুবিধা, সার্বিক নিরাপত্তা এবং তাদের নিরাপদ ভ্রমণ নিশ্চিত করতে সর্বদা প্রস্তুত রয়েছেন। তবে এখনো পর্যন্ত আশানুরূপ হোটেল মোটেল বুকিং না হওয়ায় হতাশায় ভুগছেন তারা। তবে ঈদ পরবর্তি সময়ে ব্যাপক পর্যটকদের চাপ থাকবে।

কুয়াকাটা হোটেল-মোটেল ওনার্স এসোসিয়েশন’র অর্থ সম্পাদক হোটেল খান প্যালেস’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো.রাসেল খান বলেন, এখন পর্যন্ত ৩০ শতাংশ রুম বুকিং হয়েছে। আশাকরছি সব হোটেল গুলোতেই বুকিং বাড়বে। ঈদ পরবর্তী সময়ে পর্যটকে মুখরিত থাকবে কুয়াকাটা।

ট্যুর অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশন অব কুয়াকাটা টোয়াক যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেন রাজু বলেন, বর্তমানে সৈকতে তেমন কোনো পর্যটক নেই। তবে পর্যটক বরণে পুরো সৈকত এলাকা পরিস্কার পরিছন্ন করা হয়েছে।

ট্যুরিস্ট পুলিশ কুয়াকাটা অঞ্চলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ আইশৃঙ্খলা বিষয়ে জানান, পর্যটকদের নিরাপত্তায় সার্বিক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। পর্যটকদের সেবায় নিয়োজিত থাকবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

পর্যটক টানতে কুয়াকাটা সৈকতে নতুনত্বের ছোঁয়া

সংবাদ প্রকাশের সময় : ০১:৩৯:৪৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪

কোরবানির ঈদ উপলক্ষে পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটায় পর্যটক বরণে প্রস্তুতি নিয়েছে পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা। আবাসিক হোটেল-মোটেলগুলো সেজেছে বাহারি সাজে। সৈকতের ছাতা-বেঞ্চে লেগেছে নতুনত্বের ছোঁয়া। ব্যস্ত সময় পার করছেন পর্যটকদের সেবায় নিয়োজিত ১৬টি পেশার ব্যবসায়ী ও কর্মীরা।

পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা বলছেন, এবার ঈদের ছুটিতে কুয়াকাটা সৈকতে লাখো পর্যটকদের আগমন ঘটবে। আগত পর্যটকদের নিরাপত্তায় ট্যুরিস্ট পুলিশ সার্বিক ব্যবস্থা নিয়েছে।

জানা গেছে, পর্যটকদের দৃষ্টি কাড়তে ঝাউবন, লেম্বুরবন, শুঁটকিপল্লী, কুয়াকাটা জাতীয় উদ্যানসহ দর্শনীয় স্পটগুলো পরিপাটি করে সাজানো হয়েছে। দীর্ঘ ফাঁকা সৈকত ঝকঝকে করা হয়েছে।্এবার বর্ষার শুরুতে সৈকতে উঁচু ঢেউ ও মনোরম দৃশ্য নজর কাড়বে ভ্রমণপ্রেমি পর্যটকদের।

ব্যবসায়ীরা জানান, পর্যটকদের সর্বোচ্চ সুযোগ-সুবিধা, সার্বিক নিরাপত্তা এবং তাদের নিরাপদ ভ্রমণ নিশ্চিত করতে সর্বদা প্রস্তুত রয়েছেন। তবে এখনো পর্যন্ত আশানুরূপ হোটেল মোটেল বুকিং না হওয়ায় হতাশায় ভুগছেন তারা। তবে ঈদ পরবর্তি সময়ে ব্যাপক পর্যটকদের চাপ থাকবে।

কুয়াকাটা হোটেল-মোটেল ওনার্স এসোসিয়েশন’র অর্থ সম্পাদক হোটেল খান প্যালেস’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো.রাসেল খান বলেন, এখন পর্যন্ত ৩০ শতাংশ রুম বুকিং হয়েছে। আশাকরছি সব হোটেল গুলোতেই বুকিং বাড়বে। ঈদ পরবর্তী সময়ে পর্যটকে মুখরিত থাকবে কুয়াকাটা।

ট্যুর অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশন অব কুয়াকাটা টোয়াক যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেন রাজু বলেন, বর্তমানে সৈকতে তেমন কোনো পর্যটক নেই। তবে পর্যটক বরণে পুরো সৈকত এলাকা পরিস্কার পরিছন্ন করা হয়েছে।

ট্যুরিস্ট পুলিশ কুয়াকাটা অঞ্চলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ আইশৃঙ্খলা বিষয়ে জানান, পর্যটকদের নিরাপত্তায় সার্বিক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। পর্যটকদের সেবায় নিয়োজিত থাকবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।