ঢাকা ০৪:০৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গলায় পাটের রশি পেচিয়ে হত্যা: ১১ আসামির যাবজ্জীবন

সুজন কুমার মন্ডল, জয়পুরহাট
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : ০৫:৩৯:৪২ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ জুলাই ২০২৪ ২৬ বার পড়া হয়েছে
বাংলা টাইমস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

জয়পুরহাটে কলেজ শিক্ষক আলী হাসান বাবু হত্যার ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলায় ১১ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সাথে প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়। এই জরিমানার টাকা অনাদায়ে আরো দুই বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

বুধবার (৩ জুলাই) দুপুরে অতিরিক্ত দায়রা জজ ২য় আদালতের বিচারক নুরুল ইসলাম এ দণ্ড প্রদান করেন্। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ২য় আদালতের সরকারি সহকারী কৌশলী উদয় সিং।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলো- মজিবর রহমান, আসাদুল, তোফাজ্জল হোসেন, আব্দুল হান্নান, খায়রুল, বাবু, সোহেল, আনিছুর, কালাম, মোর্শেদুল হাসান মশিউর ও আজিজুল। এরমধ্যে মোর্শেদুল হাসান মশিউর ও আজিজুল ছাড়া সবাই পলাতক রয়েছেন।

মামলার বিবরণে প্রকাশ, জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার কাঁকড়া গ্রামের আবুল কাশেম মন্ডলের ছেলে আলী হাসান বাবু গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ শহরগাছি আদর্শ মহাবিদ্যালের অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক ছিলেন। শিক্ষকতার পাশাপাশি তিনি পাইকরদরিয়া গ্রামে কৃষি পুন্যর স্টক ব্যবসা করতেন। ২০০৯ সালের ১৭ জুন রাতে তিনি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দেন। পথে কাঁকড়া ব্রীজের কাছে ব্যবসার টাকা আত্মসাতের উদ্দেশ্যে আসামিরা আলী হাসান বাবুকে গলায় পাটের রশি পেচিয়ে হত্যা করে মরদেহ নদীর মধ্যে ফেলে পালিয়ে যায়। পরে রক্তাক্ত অবস্থায় তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় নিহতের বড়ভাই আবু বক্কর বাদী হয়ে পরের দিন পাঁচবিবি থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করলে দীর্ঘ শুনানি শেষে আদালত এ রায় দেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

গলায় পাটের রশি পেচিয়ে হত্যা: ১১ আসামির যাবজ্জীবন

সংবাদ প্রকাশের সময় : ০৫:৩৯:৪২ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ জুলাই ২০২৪

জয়পুরহাটে কলেজ শিক্ষক আলী হাসান বাবু হত্যার ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলায় ১১ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সাথে প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়। এই জরিমানার টাকা অনাদায়ে আরো দুই বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

বুধবার (৩ জুলাই) দুপুরে অতিরিক্ত দায়রা জজ ২য় আদালতের বিচারক নুরুল ইসলাম এ দণ্ড প্রদান করেন্। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ২য় আদালতের সরকারি সহকারী কৌশলী উদয় সিং।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলো- মজিবর রহমান, আসাদুল, তোফাজ্জল হোসেন, আব্দুল হান্নান, খায়রুল, বাবু, সোহেল, আনিছুর, কালাম, মোর্শেদুল হাসান মশিউর ও আজিজুল। এরমধ্যে মোর্শেদুল হাসান মশিউর ও আজিজুল ছাড়া সবাই পলাতক রয়েছেন।

মামলার বিবরণে প্রকাশ, জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার কাঁকড়া গ্রামের আবুল কাশেম মন্ডলের ছেলে আলী হাসান বাবু গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ শহরগাছি আদর্শ মহাবিদ্যালের অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক ছিলেন। শিক্ষকতার পাশাপাশি তিনি পাইকরদরিয়া গ্রামে কৃষি পুন্যর স্টক ব্যবসা করতেন। ২০০৯ সালের ১৭ জুন রাতে তিনি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দেন। পথে কাঁকড়া ব্রীজের কাছে ব্যবসার টাকা আত্মসাতের উদ্দেশ্যে আসামিরা আলী হাসান বাবুকে গলায় পাটের রশি পেচিয়ে হত্যা করে মরদেহ নদীর মধ্যে ফেলে পালিয়ে যায়। পরে রক্তাক্ত অবস্থায় তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় নিহতের বড়ভাই আবু বক্কর বাদী হয়ে পরের দিন পাঁচবিবি থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করলে দীর্ঘ শুনানি শেষে আদালত এ রায় দেন।