ঢাকা ০৫:০৫ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

হাথরসে মৃত্যুমিছিল, ক্ষতিপূরণ পাবে নিহতের পরিবার

বাংলা টাইমস ডেস্ক
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : ১১:৩২:২২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ জুলাই ২০২৪ ৪১ বার পড়া হয়েছে
বাংলা টাইমস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

ভারতের উত্তর প্রদেশের হাথরস জেলায় ধর্মীয় অনুষ্ঠানে পদদলিত হয়ে এই পর্যন্ত ১০৭ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। জেলার সিকান্দ্রা রাউ এলাকার রতি ভানপুর গ্রামে তাঁবুতে এক ধর্মপ্রচারক তার অনুগামীদের উদ্দেশে ভাষণ দিচ্ছিলেন। অনুষ্ঠান শেষ হলে তাঁবু থেকে বের হওয়ার সময় শুরু হয় ঠেলাঠেলি। আর এতেই মৃত্যু হয় ১২০ জনের।

ঘটনার সময় সংসদে ভাষণ দিচ্ছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদী। এ ঘটনা জানার পর তিনি বক্তব্য থামিয়ে শোকপ্রকাশ করেন। এরপর এক্স হ্যান্ডলে পোস্ট করে ঘটনায় ক্ষতিপূরণের কথা ঘোষণা করেছে তিনি।

হাথরসের ঘটনায় শোকপ্রকাশ করেছেন ভারতের রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মু। এছাড়াও শোক প্রকাশ করেন পশ্চিমবঙ্গের মু্খ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, লোকসভার বিরোধী দলনেতা রাহুল গান্ধী এবং উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ।

মৃতদের পরিবারকে দুই লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার কথা ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় ত্রাণ তহবিল থেকে এই টাকা দেয়া হবে। আহতদের ৫০ হাজার টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেয়া হবে।

এক্সে উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী আদিত্যনাথ জানান, আহতদের যুদ্ধকালীন তৎপরতায় হাসপাতালে চিকিৎসা করানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

সংবাদ সংস্থা পিটিআই জানিয়েছে, রতিভানপুরে একটি ধর্মীয় অনুষ্ঠান চলছিলো মঙ্গলবার (২ জুলাই)। অনুষ্ঠান শেষ হতেই পদপিষ্টের পরিস্থিতি তৈরি হয়। এ ঘটনায় ১২০ জনের মৃত্যু হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

হাথরসে মৃত্যুমিছিল, ক্ষতিপূরণ পাবে নিহতের পরিবার

সংবাদ প্রকাশের সময় : ১১:৩২:২২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ জুলাই ২০২৪

ভারতের উত্তর প্রদেশের হাথরস জেলায় ধর্মীয় অনুষ্ঠানে পদদলিত হয়ে এই পর্যন্ত ১০৭ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। জেলার সিকান্দ্রা রাউ এলাকার রতি ভানপুর গ্রামে তাঁবুতে এক ধর্মপ্রচারক তার অনুগামীদের উদ্দেশে ভাষণ দিচ্ছিলেন। অনুষ্ঠান শেষ হলে তাঁবু থেকে বের হওয়ার সময় শুরু হয় ঠেলাঠেলি। আর এতেই মৃত্যু হয় ১২০ জনের।

ঘটনার সময় সংসদে ভাষণ দিচ্ছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদী। এ ঘটনা জানার পর তিনি বক্তব্য থামিয়ে শোকপ্রকাশ করেন। এরপর এক্স হ্যান্ডলে পোস্ট করে ঘটনায় ক্ষতিপূরণের কথা ঘোষণা করেছে তিনি।

হাথরসের ঘটনায় শোকপ্রকাশ করেছেন ভারতের রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মু। এছাড়াও শোক প্রকাশ করেন পশ্চিমবঙ্গের মু্খ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, লোকসভার বিরোধী দলনেতা রাহুল গান্ধী এবং উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ।

মৃতদের পরিবারকে দুই লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার কথা ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় ত্রাণ তহবিল থেকে এই টাকা দেয়া হবে। আহতদের ৫০ হাজার টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেয়া হবে।

এক্সে উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী আদিত্যনাথ জানান, আহতদের যুদ্ধকালীন তৎপরতায় হাসপাতালে চিকিৎসা করানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

সংবাদ সংস্থা পিটিআই জানিয়েছে, রতিভানপুরে একটি ধর্মীয় অনুষ্ঠান চলছিলো মঙ্গলবার (২ জুলাই)। অনুষ্ঠান শেষ হতেই পদপিষ্টের পরিস্থিতি তৈরি হয়। এ ঘটনায় ১২০ জনের মৃত্যু হয়েছে।