ঢাকা ০৫:৫৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শোলাকিয়ায় জঙ্গি হামলার ৮ বছর

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : ১০:২২:৫৭ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৭ জুলাই ২০২৪ ১৯ বার পড়া হয়েছে
বাংলা টাইমস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

২০১৬ সালের ৭ জুলাই সকাল পৌনে ৯টার দিকে ঈদুল ফিতরের দিন হঠাৎ বিস্ফোরণের শব্দ। পুলিশের চেকপোস্টে বাধা পেয়ে বোমা হামলা করে জঙ্গিরা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মুফতি মোহাম্মদ আলী মসজিদের সামনে টহলরত ছিলেন পুলিশ সদস্যরা। সেখান দিয়ে দুই জঙ্গি ঈদের জামাতে ঢোকার সময় তাদের ব্যাগ তল্লাশি করার সময় পুলিশকে লক্ষ্য করে হাতবোমা ছোড়া হয়। বোমা বিস্ফোরণে কয়েক পুলিশ সদস্য মাটিতে লুটিয়ে পড়েন।

হামলায় দুই পুলিশ সদস্যকে হত্যা করে জঙ্গিরা। পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন জঙ্গি আবির রহমান।

ওই দিনের বিভীষিকা আজও ভুলতে পারেননি এলাকাবাসী। তারা বলছেন, সেদিন জঙ্গিরা পুলিশকে কুপিয়ে হত্যা করে।

ঘটনার দিন ঘরের মধ্যে থেকেও গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন গৃহবধূ ঝর্ণা ভৌমিক। ঘটনার বিচার পাওয়ার অপেক্ষা শেষ হয়নি তার স্বজনদের।

এদিকে, অভিযুক্ত জঙ্গিদের একাধিক মামলায় মৃত্যুদণ্ডাদেশ থাকায় নিরাপত্তাজনিত কারণে আদালতে হাজির করা যায়নি। তবে সম্প্রতি নিরাপত্তায় তাদের আদালতে হাজির করে সাক্ষীদের জবানবন্দি নেয়া শুরু হয়েছে।

কিশোরগঞ্জের পাবলিক প্রসিকিউটর আবু নাসের মো. ফারুক সঞ্জু বলেন, আইনের কারণে আমরা সাক্ষী নিতে পারিনি। ইদানিং বিশেষ কায়দায় তাদের কিশোরগঞ্জ কারাগারে এনে সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু করি। আশাকরি মামলাটি খুব শীঘ্রই তা শেষ হবে বলে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

শোলাকিয়ায় জঙ্গি হামলার ৮ বছর

সংবাদ প্রকাশের সময় : ১০:২২:৫৭ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৭ জুলাই ২০২৪

২০১৬ সালের ৭ জুলাই সকাল পৌনে ৯টার দিকে ঈদুল ফিতরের দিন হঠাৎ বিস্ফোরণের শব্দ। পুলিশের চেকপোস্টে বাধা পেয়ে বোমা হামলা করে জঙ্গিরা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মুফতি মোহাম্মদ আলী মসজিদের সামনে টহলরত ছিলেন পুলিশ সদস্যরা। সেখান দিয়ে দুই জঙ্গি ঈদের জামাতে ঢোকার সময় তাদের ব্যাগ তল্লাশি করার সময় পুলিশকে লক্ষ্য করে হাতবোমা ছোড়া হয়। বোমা বিস্ফোরণে কয়েক পুলিশ সদস্য মাটিতে লুটিয়ে পড়েন।

হামলায় দুই পুলিশ সদস্যকে হত্যা করে জঙ্গিরা। পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন জঙ্গি আবির রহমান।

ওই দিনের বিভীষিকা আজও ভুলতে পারেননি এলাকাবাসী। তারা বলছেন, সেদিন জঙ্গিরা পুলিশকে কুপিয়ে হত্যা করে।

ঘটনার দিন ঘরের মধ্যে থেকেও গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন গৃহবধূ ঝর্ণা ভৌমিক। ঘটনার বিচার পাওয়ার অপেক্ষা শেষ হয়নি তার স্বজনদের।

এদিকে, অভিযুক্ত জঙ্গিদের একাধিক মামলায় মৃত্যুদণ্ডাদেশ থাকায় নিরাপত্তাজনিত কারণে আদালতে হাজির করা যায়নি। তবে সম্প্রতি নিরাপত্তায় তাদের আদালতে হাজির করে সাক্ষীদের জবানবন্দি নেয়া শুরু হয়েছে।

কিশোরগঞ্জের পাবলিক প্রসিকিউটর আবু নাসের মো. ফারুক সঞ্জু বলেন, আইনের কারণে আমরা সাক্ষী নিতে পারিনি। ইদানিং বিশেষ কায়দায় তাদের কিশোরগঞ্জ কারাগারে এনে সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু করি। আশাকরি মামলাটি খুব শীঘ্রই তা শেষ হবে বলে।