ঢাকা ০৫:৫০ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মাগুরছড়া ২৭তম ট্রাজেডি দিবস

এলিসন সুঙ, মৌলভীবাজার
  • আপডেট সময় : ০৮:২০:১৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪ ৫৪ বার পড়া হয়েছে
বাংলা টাইমস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার মাগুরছড়া গ্যাসক্ষেত্রে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছিলো। প্রতি বছর এই দিনটি এলেই মানুষের চোখে ভেসে উঠে সেই রাতের কালো আকাশে দাবানলে লাল হয়ে উঠা সেই ভয়ানক দৃশ্য। একে একে ২৭টি বছর কেটে গেলেও পাওয়া যায়নি ভয়াবহ এই বিস্ফোরণে ক্ষতির ১৪ হাজার কোটি টাকা।

আর ২৭ বছর ধরে এই দিনটি নানান কর্সসূচীর মাধ্যমে প্রতিবাদ করে আসছে বিভিন্ন পরিবেশবাদী সামাজিক সংগঠনগুলো।

১৯৯৭ সালে ১৪ জুন মধ্যরাতে মাগুরছড়ার ১নং অনুসন্ধান কূপ খননকালে হঠাৎ করে ভয়াবহ বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছিল। বিস্ফোরণের শব্দে কেঁপে উঠে কমলগঞ্জসহ জেলার বিভিন্ন স্থান। বিস্ফোরণে ক্ষতিগ্রস্ত হয় সংরক্ষিত বনাঞ্চলের ব্যাপক এলাকা। এতে করে বন ও পরিবেশের জীববৈচিত্র, মাগুরছড়া খাসিয়া পুঞ্জির বাড়ীঘর, ঢাকা-সিলেট রেলপথ,শমসেরনগর শ্রীমঙ্গল সড়কপথ ফুলবাড়ি চা বাগান, পানের বরজ এলাকা ও পিডিবির ৩৩ হাজার কেভি প্রধান বৈদ্যুতিক লাইন। এছাড়াও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এলাকার ২৮টি চা বাগান।

৬ মাস বন্ধ ছিলো রেল ও সড়ক যোগাযোগ। শ্রীমঙ্গল-কমলগঞ্জ ১৫ কিলোমিটার উচ্চতাপ বৈদ্যুতিক লাইন পুড়ে যায়। বড়লেখা, কুলাউড়া ও কমলগঞ্জ উপজেলার ৫০টি চা বাগানে দীর্ঘদিন স্থায়ীভাবে বিদ্যুৎ সংকট দেখা দেয়। প্রায় ৬৯৫ হেক্টর বনাঞ্চলের প্রাকৃতিক পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্যের ব্যাপক ক্ষতির সৃষ্টি হয়। এতে ২০০ বিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস পুড়ে নষ্ট হয়ে যায়। প্রায় ৫০ একরের গাছ-গাছালির আংশিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

মাগুরছড়া ২৭তম ট্রাজেডি দিবস

আপডেট সময় : ০৮:২০:১৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪

মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার মাগুরছড়া গ্যাসক্ষেত্রে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছিলো। প্রতি বছর এই দিনটি এলেই মানুষের চোখে ভেসে উঠে সেই রাতের কালো আকাশে দাবানলে লাল হয়ে উঠা সেই ভয়ানক দৃশ্য। একে একে ২৭টি বছর কেটে গেলেও পাওয়া যায়নি ভয়াবহ এই বিস্ফোরণে ক্ষতির ১৪ হাজার কোটি টাকা।

আর ২৭ বছর ধরে এই দিনটি নানান কর্সসূচীর মাধ্যমে প্রতিবাদ করে আসছে বিভিন্ন পরিবেশবাদী সামাজিক সংগঠনগুলো।

১৯৯৭ সালে ১৪ জুন মধ্যরাতে মাগুরছড়ার ১নং অনুসন্ধান কূপ খননকালে হঠাৎ করে ভয়াবহ বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছিল। বিস্ফোরণের শব্দে কেঁপে উঠে কমলগঞ্জসহ জেলার বিভিন্ন স্থান। বিস্ফোরণে ক্ষতিগ্রস্ত হয় সংরক্ষিত বনাঞ্চলের ব্যাপক এলাকা। এতে করে বন ও পরিবেশের জীববৈচিত্র, মাগুরছড়া খাসিয়া পুঞ্জির বাড়ীঘর, ঢাকা-সিলেট রেলপথ,শমসেরনগর শ্রীমঙ্গল সড়কপথ ফুলবাড়ি চা বাগান, পানের বরজ এলাকা ও পিডিবির ৩৩ হাজার কেভি প্রধান বৈদ্যুতিক লাইন। এছাড়াও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এলাকার ২৮টি চা বাগান।

৬ মাস বন্ধ ছিলো রেল ও সড়ক যোগাযোগ। শ্রীমঙ্গল-কমলগঞ্জ ১৫ কিলোমিটার উচ্চতাপ বৈদ্যুতিক লাইন পুড়ে যায়। বড়লেখা, কুলাউড়া ও কমলগঞ্জ উপজেলার ৫০টি চা বাগানে দীর্ঘদিন স্থায়ীভাবে বিদ্যুৎ সংকট দেখা দেয়। প্রায় ৬৯৫ হেক্টর বনাঞ্চলের প্রাকৃতিক পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্যের ব্যাপক ক্ষতির সৃষ্টি হয়। এতে ২০০ বিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস পুড়ে নষ্ট হয়ে যায়। প্রায় ৫০ একরের গাছ-গাছালির আংশিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়।