ঢাকা ০৮:১০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রভাবশালীদের দখলে থাকা জমি ফেরত পেলো তাপবিদুৎ কেন্দ্র

বরগুনা প্রতিনিধি
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : ১১:০৩:৪৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ জুলাই ২০২৪ ৪৪ বার পড়া হয়েছে
বাংলা টাইমস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

বরগুনার তালতলীতে ৩০৭ মেগাওয়াট কয়লা ভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র বরিশাল ইলেকট্রিক পাওয়ার কোম্পানী লিমিটেড কে দীর্ঘমেয়াদী বন্দোবস্তের এক শত ৫৭.২৯ একর জমি বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে ওই খাস জমি স্থানীয় প্রভাবশালীদের দখলে রেখে অবৈধভাবে ভোগ দখল করার অভিযোগ রয়েছে।

বৃহস্পতিবার ৪ (জুলাই) দুপুরে বরগুনা জেলা প্রশাসনের পক্ষে সিনিয়র সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রিন্টু বিকাশ চাকমা ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) অমিত দত্ত খাস খতিয়ানের বন্দোবস্তকৃত জমি বুঝিয়ে দেন তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কর্তৃপক্ষকে।

জানা গেছে, উপজেলার নিশানবাড়িয়া ইউনিয়নের বড় অংকুজানপাড়া এলাকায় ২০১৮ সালের জুনের দিকে ৩০৭ মেগাওয়াট কয়লা ভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করা হয়। তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের মাঝেই সরকারী খাস জমি ভূয়া বন্দোবস্ত দেখিয়ে স্থানীয় প্রভাবশালীরা দখল করে রাখেন। ছোট নিশানবাড়িয়া মৌজার এক নং খাস খতিয়ান ভুক্ত অকৃষি বানিজ্যিক শ্রেণীর ছয়টি দাগের ৩২০.৯৭ একর থেকে ১৫৭.২৯ একর খাস জমি দীর্ঘমেয়াদী বন্দোবস্ত পাওয়ার জন্য ২০২০ সালে বরিশাল ইলেকট্রিক পাওয়ার কোম্পানী লিমিটেড (বিইপিসিএল) ভূমি মন্ত্রনালয়ে আবেদন করেন।

গত বছরের আগস্ট মাসের শেষ দিকে ওই ছয়টি দাগ থেকে শর্ত সাপেক্ষে ১৫৭.২৯ একর জমি বিইপিসিএল কে দীর্ঘমেয়াদী বন্দোবস্ত প্রদান করা হয়। ঐ বন্দোবস্তের জমি জেলা প্রশাসনকে বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য নির্দেশ দেয় ভূমি মন্ত্রনালয়। দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় প্রভাবশালীদের দখলে থাকা সরকারি জমি জেলা প্রশাসন সরেজমিনে গিয়ে বুঝিয়ে দেন বিইপিসিএল কে। ঐ জমি যাতে কেউ পুনঃদখল করতে না পারে সেজন্য জমি মেপে সীমানা নির্ধারণ করে দেওয়া হয়।

ইতোমধ্যে ২০২৩ সালের ডিসেম্বর মাস হতে এ বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে জাতীয় গ্রিডে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হচ্ছে।

তালতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার সিফাত আনোয়ার তুমপা বলেন, দখলে থাকা বন্দোবস্তকৃত জমি ভূমি মন্ত্রনালয় থেকে তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রকে বুঝিয়ে দেয়ার নির্দেশনা রয়েছে। এজন্য জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বরিশাল ইলেকট্রিক পাওয়ার কোম্পানী লিমিটেডকে ১৫৭.২৯ একর জমি বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

প্রভাবশালীদের দখলে থাকা জমি ফেরত পেলো তাপবিদুৎ কেন্দ্র

সংবাদ প্রকাশের সময় : ১১:০৩:৪৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ জুলাই ২০২৪

বরগুনার তালতলীতে ৩০৭ মেগাওয়াট কয়লা ভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র বরিশাল ইলেকট্রিক পাওয়ার কোম্পানী লিমিটেড কে দীর্ঘমেয়াদী বন্দোবস্তের এক শত ৫৭.২৯ একর জমি বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে ওই খাস জমি স্থানীয় প্রভাবশালীদের দখলে রেখে অবৈধভাবে ভোগ দখল করার অভিযোগ রয়েছে।

বৃহস্পতিবার ৪ (জুলাই) দুপুরে বরগুনা জেলা প্রশাসনের পক্ষে সিনিয়র সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রিন্টু বিকাশ চাকমা ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) অমিত দত্ত খাস খতিয়ানের বন্দোবস্তকৃত জমি বুঝিয়ে দেন তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কর্তৃপক্ষকে।

জানা গেছে, উপজেলার নিশানবাড়িয়া ইউনিয়নের বড় অংকুজানপাড়া এলাকায় ২০১৮ সালের জুনের দিকে ৩০৭ মেগাওয়াট কয়লা ভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করা হয়। তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের মাঝেই সরকারী খাস জমি ভূয়া বন্দোবস্ত দেখিয়ে স্থানীয় প্রভাবশালীরা দখল করে রাখেন। ছোট নিশানবাড়িয়া মৌজার এক নং খাস খতিয়ান ভুক্ত অকৃষি বানিজ্যিক শ্রেণীর ছয়টি দাগের ৩২০.৯৭ একর থেকে ১৫৭.২৯ একর খাস জমি দীর্ঘমেয়াদী বন্দোবস্ত পাওয়ার জন্য ২০২০ সালে বরিশাল ইলেকট্রিক পাওয়ার কোম্পানী লিমিটেড (বিইপিসিএল) ভূমি মন্ত্রনালয়ে আবেদন করেন।

গত বছরের আগস্ট মাসের শেষ দিকে ওই ছয়টি দাগ থেকে শর্ত সাপেক্ষে ১৫৭.২৯ একর জমি বিইপিসিএল কে দীর্ঘমেয়াদী বন্দোবস্ত প্রদান করা হয়। ঐ বন্দোবস্তের জমি জেলা প্রশাসনকে বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য নির্দেশ দেয় ভূমি মন্ত্রনালয়। দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় প্রভাবশালীদের দখলে থাকা সরকারি জমি জেলা প্রশাসন সরেজমিনে গিয়ে বুঝিয়ে দেন বিইপিসিএল কে। ঐ জমি যাতে কেউ পুনঃদখল করতে না পারে সেজন্য জমি মেপে সীমানা নির্ধারণ করে দেওয়া হয়।

ইতোমধ্যে ২০২৩ সালের ডিসেম্বর মাস হতে এ বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে জাতীয় গ্রিডে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হচ্ছে।

তালতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার সিফাত আনোয়ার তুমপা বলেন, দখলে থাকা বন্দোবস্তকৃত জমি ভূমি মন্ত্রনালয় থেকে তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রকে বুঝিয়ে দেয়ার নির্দেশনা রয়েছে। এজন্য জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বরিশাল ইলেকট্রিক পাওয়ার কোম্পানী লিমিটেডকে ১৫৭.২৯ একর জমি বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে।