ঢাকা ০৮:৩১ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

খুলে দেয়া হয়েছে তিস্তার ৪৪টি জলকপাট

আজিজুল বুলু, নীলফামারী
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : ০৭:০২:৩০ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ জুলাই ২০২৪ ৫৪ বার পড়া হয়েছে
বাংলা টাইমস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

কয়েক দিনের ভারী বর্ষণ ও পাহাড়ী ঢলে তিস্তা নদী’র পানি হু-হু করে বাড়ছে। তিস্তার পানি বিপদ-সীমা’র ছুই-ছুই প্রবাহিত হচ্ছে। পানির প্রবল চাপ নিয়ন্ত্রণে তিস্তা ব্যারেজের ৪৪টি জলকপাট খুলে দিয়েছে পাউবো কর্তপক্ষ।

নীলফামারীর ডিমলা ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডে নির্বাহী প্রকৌশলী ও তিস্তা ব্যারেজ রক্ষনাবেক্ষণ কর্মকর্তা আসফা-উদ-দ্দৌলা জানান,কয়েকদিনের ভারী বর্ষণ আর উজানের পাহাড়ী ঢলে তিস্তার পানি ক্রমেই বাড়ছে। ডালিয়া বন্যা সতর্কীকরণ পয়েন্টে তিস্তা নদীন পানি বিপদ সীমার ২৫ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। গত সোমবার (১লা জুলাই) থেকে তিস্তা নদী’র পানি প্রতিঘন্টায় বাড়ছে। তিস্তার পানি আরও বৃদ্ধি পেতে পারে বলে ধারণা করছে তিনি।

তিস্তার বুকে জেগে ওঠা বাইশপুকুর চর,ফকরতের চর,ঝাড়সিংশ্বর চর, বাঘেরচর তলিয়ে গেছে। এসব এলাকার মানুষজন নিরাপদ আশ্রয়ে অবস্থান করছেন। তিস্তা নদীর পানি রুদ্রুমুর্তি ধারণ করে তিস্তা দূকুল উপচে তিস্তার তীরকর্তী নিম্নাঞ্চল গুলো বানের পানি প্রবেশ করছে।

এলাকাগুলো হচ্ছে-ডিমলা উপজেলার খগাখড়িবাড়ী-টেপাখড়িবাড়ী-গয়াবাড়ী-চাপানী-ঝুনাগাছচাপানী এবং জলঢাকা উপজেলার গুলমুন্ডা -শৌলমারী ও কৈইমারী ইউনিয়ন। দুর্যোগ মোকাবেলায় তিস্তা পাড়ের মানুষের নিরাপত্তায় প্রস্তুত রয়েছে ডিমলা ও জলঢাকা উপজেলা প্রশাসন বলে জানা গেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

খুলে দেয়া হয়েছে তিস্তার ৪৪টি জলকপাট

সংবাদ প্রকাশের সময় : ০৭:০২:৩০ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ জুলাই ২০২৪

কয়েক দিনের ভারী বর্ষণ ও পাহাড়ী ঢলে তিস্তা নদী’র পানি হু-হু করে বাড়ছে। তিস্তার পানি বিপদ-সীমা’র ছুই-ছুই প্রবাহিত হচ্ছে। পানির প্রবল চাপ নিয়ন্ত্রণে তিস্তা ব্যারেজের ৪৪টি জলকপাট খুলে দিয়েছে পাউবো কর্তপক্ষ।

নীলফামারীর ডিমলা ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডে নির্বাহী প্রকৌশলী ও তিস্তা ব্যারেজ রক্ষনাবেক্ষণ কর্মকর্তা আসফা-উদ-দ্দৌলা জানান,কয়েকদিনের ভারী বর্ষণ আর উজানের পাহাড়ী ঢলে তিস্তার পানি ক্রমেই বাড়ছে। ডালিয়া বন্যা সতর্কীকরণ পয়েন্টে তিস্তা নদীন পানি বিপদ সীমার ২৫ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। গত সোমবার (১লা জুলাই) থেকে তিস্তা নদী’র পানি প্রতিঘন্টায় বাড়ছে। তিস্তার পানি আরও বৃদ্ধি পেতে পারে বলে ধারণা করছে তিনি।

তিস্তার বুকে জেগে ওঠা বাইশপুকুর চর,ফকরতের চর,ঝাড়সিংশ্বর চর, বাঘেরচর তলিয়ে গেছে। এসব এলাকার মানুষজন নিরাপদ আশ্রয়ে অবস্থান করছেন। তিস্তা নদীর পানি রুদ্রুমুর্তি ধারণ করে তিস্তা দূকুল উপচে তিস্তার তীরকর্তী নিম্নাঞ্চল গুলো বানের পানি প্রবেশ করছে।

এলাকাগুলো হচ্ছে-ডিমলা উপজেলার খগাখড়িবাড়ী-টেপাখড়িবাড়ী-গয়াবাড়ী-চাপানী-ঝুনাগাছচাপানী এবং জলঢাকা উপজেলার গুলমুন্ডা -শৌলমারী ও কৈইমারী ইউনিয়ন। দুর্যোগ মোকাবেলায় তিস্তা পাড়ের মানুষের নিরাপত্তায় প্রস্তুত রয়েছে ডিমলা ও জলঢাকা উপজেলা প্রশাসন বলে জানা গেছে।