ঢাকা ১০:৩৮ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ৬ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

এনজিওর ঋণের চাপে প্রবাসীর স্ত্রীর আত্মহত্যা

নোয়াখালী প্রতিনিধি
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : ০৫:০৯:৫২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০২৪ ৩৪ বার পড়া হয়েছে
বাংলা টাইমস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নোয়াখালীর কবিরহাট কপৌরসভার ৬নম্বর ওয়ার্ডের ইন্দ্রপুর গ্রামে এনজিওর ঋণের চাপে এক প্রবাসীর স্ত্রী আত্মহত্যা করেছে। বৃহস্পতিবার (২৭জুন) বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এর আগে, বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) বেলা সাড়ে ১০টার দিকে ইন্দ্রপুর গ্রামের মতি মিয়ার বাড়িতে এই ঘটনা ঘটে। নিহত নাসরিন আক্তার (৩১) ওমান প্রবাসী জহির উদ্দিনের স্ত্রী। তিনি দুই সন্তানের জননী ছিলেন।

জানা গেছে, আড়াই বছর আগে নাসরিনের স্বামী বিভিন্ন এনজিও ও ব্যক্তির কাছ থেকে ঋণ নিয়ে ওমান যায়। কিছু দিন ধরে ঋণদাতা প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা পাওনা টাকার জন্য চাপ দিলে গৃহবধূ গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) সকালে এনজিও কর্মিরা পাওনা টাকার জন্য তার বাড়িতে যায়। বাড়িতে গিয়ে বসত ঘরের দরজা বন্ধ দেখে তাকে খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে তার ঝুলন্ত মরদেহ দেখতে পায় এনজিও কর্মিরা। খবর পেয়ে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে।

কবিরহাট থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো.আব্দুল বাতেন বলেন, পুলিশ মরদেহের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরী করে থানায় নিয়ে আসে। ঋণের চাপেই গৃহবধূ আত্মহত্যা করেন। এ ঘটনায় অপমৃত্যু মামলা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

এনজিওর ঋণের চাপে প্রবাসীর স্ত্রীর আত্মহত্যা

সংবাদ প্রকাশের সময় : ০৫:০৯:৫২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০২৪

নোয়াখালীর কবিরহাট কপৌরসভার ৬নম্বর ওয়ার্ডের ইন্দ্রপুর গ্রামে এনজিওর ঋণের চাপে এক প্রবাসীর স্ত্রী আত্মহত্যা করেছে। বৃহস্পতিবার (২৭জুন) বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এর আগে, বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) বেলা সাড়ে ১০টার দিকে ইন্দ্রপুর গ্রামের মতি মিয়ার বাড়িতে এই ঘটনা ঘটে। নিহত নাসরিন আক্তার (৩১) ওমান প্রবাসী জহির উদ্দিনের স্ত্রী। তিনি দুই সন্তানের জননী ছিলেন।

জানা গেছে, আড়াই বছর আগে নাসরিনের স্বামী বিভিন্ন এনজিও ও ব্যক্তির কাছ থেকে ঋণ নিয়ে ওমান যায়। কিছু দিন ধরে ঋণদাতা প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা পাওনা টাকার জন্য চাপ দিলে গৃহবধূ গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) সকালে এনজিও কর্মিরা পাওনা টাকার জন্য তার বাড়িতে যায়। বাড়িতে গিয়ে বসত ঘরের দরজা বন্ধ দেখে তাকে খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে তার ঝুলন্ত মরদেহ দেখতে পায় এনজিও কর্মিরা। খবর পেয়ে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে।

কবিরহাট থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো.আব্দুল বাতেন বলেন, পুলিশ মরদেহের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরী করে থানায় নিয়ে আসে। ঋণের চাপেই গৃহবধূ আত্মহত্যা করেন। এ ঘটনায় অপমৃত্যু মামলা হবে।