ঢাকা ১২:০৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ৫ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আওয়ামী লীগ নেতাসহ দুজনকে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা

ফেরদৌস সিহানুক (শান্ত), চাঁপাইনবাবগঞ্জ
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : ১১:৫৪:১১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০২৪ ৭৫ বার পড়া হয়েছে
বাংলা টাইমস অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা পরিষদের সদস্য ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুস সালাম এবং আব্দুল মতিন (৩৫) নামে এক শিক্ষককে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। এসময় তাদের বাঁচাতে গিয়ে গুলিবিদ্ধ হয়েছেন মতিনের বড় ভাই মো. টিটু আলী।

বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে শিবগঞ্জ উপজেলার রানিহাটি কলেজের সামনের গুচ্ছগ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত জেলা পরিষদ সদস্য আব্দুস সালাম শিবগঞ্জ উপজেলার নয়ালাভাঙ্গা গ্রামের এত্তাজ আলীর ছেলে ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। অন্যদিকে আব্দুল মতিন রানিহাটি ফতেপুর গ্রামের মৃত মান্নান আলীর ছেলে ও হরিনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, রানিহাটি কলেজের সামনে থাকা আশ্রয়ণ প্রকল্পের কাছে বসে ছিলেন আব্দুস সালামসহ তার সঙ্গীরা। দুর্বৃত্তরা তাদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। দুর্বৃত্তদের ককটেল বিষ্ফোরণ ও গুলিতে ঘটনাস্থলেই মারা যান আব্দুস সালাম। গুলিবিদ্ধ অবস্থায় মতিন আলীকে হাসপাতালে নেওয়া হয়।

জেলা হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. মিম ইফতেখার জাহান বলেন, রাত ৯টায় মতিন আলীকে এখানে নিয়ে আসা হয়। এসময় তার মাথা ও পা গুলিবিদ্ধ ছিল। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের ফলে হাসপাতালে নেওয়ার পথেই তিনি মারা যান।

শিবগঞ্জ থানার ওসি সাজ্জাদ হোসেন দুজন নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করে বাংলা টাইমসকে জানান, নয়ালাভাঙ্গা এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দু-পক্ষের দীর্ঘদিনের বিরোধ রয়েছে। এমন ঘটনাকে কেন্দ্র এই ঘটনা ঘটতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

আওয়ামী লীগ নেতাসহ দুজনকে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা

সংবাদ প্রকাশের সময় : ১১:৫৪:১১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০২৪

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা পরিষদের সদস্য ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুস সালাম এবং আব্দুল মতিন (৩৫) নামে এক শিক্ষককে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। এসময় তাদের বাঁচাতে গিয়ে গুলিবিদ্ধ হয়েছেন মতিনের বড় ভাই মো. টিটু আলী।

বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে শিবগঞ্জ উপজেলার রানিহাটি কলেজের সামনের গুচ্ছগ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত জেলা পরিষদ সদস্য আব্দুস সালাম শিবগঞ্জ উপজেলার নয়ালাভাঙ্গা গ্রামের এত্তাজ আলীর ছেলে ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। অন্যদিকে আব্দুল মতিন রানিহাটি ফতেপুর গ্রামের মৃত মান্নান আলীর ছেলে ও হরিনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, রানিহাটি কলেজের সামনে থাকা আশ্রয়ণ প্রকল্পের কাছে বসে ছিলেন আব্দুস সালামসহ তার সঙ্গীরা। দুর্বৃত্তরা তাদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। দুর্বৃত্তদের ককটেল বিষ্ফোরণ ও গুলিতে ঘটনাস্থলেই মারা যান আব্দুস সালাম। গুলিবিদ্ধ অবস্থায় মতিন আলীকে হাসপাতালে নেওয়া হয়।

জেলা হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. মিম ইফতেখার জাহান বলেন, রাত ৯টায় মতিন আলীকে এখানে নিয়ে আসা হয়। এসময় তার মাথা ও পা গুলিবিদ্ধ ছিল। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের ফলে হাসপাতালে নেওয়ার পথেই তিনি মারা যান।

শিবগঞ্জ থানার ওসি সাজ্জাদ হোসেন দুজন নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করে বাংলা টাইমসকে জানান, নয়ালাভাঙ্গা এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দু-পক্ষের দীর্ঘদিনের বিরোধ রয়েছে। এমন ঘটনাকে কেন্দ্র এই ঘটনা ঘটতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।