https://bangla-times.com/
ঢাকাশনিবার , ২ ডিসেম্বর ২০২৩

‘নৌ বাহিনীকে যুগপযোগী ভাবে গড়ে তোলা হচ্ছে’

উত্তম কুমার হাওলাদার, পটুয়াখালী
ডিসেম্বর ২, ২০২৩ ৭:২৫ অপরাহ্ণ । ৮৩ জন
Link Copied!

বাংলাদেশ নৌবাহিনীর প্রধান এ্যাডমিরাল এম নাজমুল হাসান বলেছেন, নৌবাহিনীর উন্নয়নের অগ্রযাত্রাকে অব্যাহত রাখতে নবীন নাবিক প্রশিক্ষণ বিদ্যালয় থেকে অর্জিত জ্ঞান যথাযথভাবে কাজে লাগিয়ে নিজেদেরকে যোগ্য নাবিক হিসেবে গড়ে তুলবে এবং জাতীয় নিরাপত্তা ও অগ্রগতির পথে সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করবে। আজকের নবীন নাবিকেরা ভবিষ্যতে বাংলাদেশের সুুবিশাল সমুদ্রসীমা রক্ষা করবেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যুগের সাথে তাল মিলিয়ে স্মার্ট বাংলাদেশ নির্মাণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর এ স্বপ্নকে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে নৌ বাহিনীকে যুগপযোগী ভাবে গড়ে তোলা হচ্ছে।

শনিবার (২ ডিসেম্বর) বেলা ১১ টায় পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় লালুয়া ইউনিয়নে বানৌজা শের-ই-বাংলা ঘাঁটিতে নৌবাহিনীর বি/২০২৩ ব্যাচের ৬৭১ জন নবীন নাবিকের শিক্ষা সমাপনী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের উত্তরোত্তর উন্নয়নে ও সমৃদ্ধির লক্ষ্যে স্মার্ট নৌবাহিনী হিসেবে গড়ে তোলা হচ্ছে। একই সাথে বন্ধু-প্রতিম সকল রাষ্ট্রের সাথে সমন্বিতভাবে কাজ করে বঙ্গোপসাগরের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ নৌবাহিনী অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে। ইতোমধ্যে নৌবহরে বিভিন্ন শ্রেণির জাহাজ, স্পেশাল ফোর্স, হেলিকপ্টার, এমপিএ ও সাবমেরিন যুক্ত হয়েছে এবং কমিশনিং করা হয়েছে একাধিক নৌ ঘাঁটি। এ সময় তিনি একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় স্মার্ট নৌবাহিনী গড়ে তোলার লক্ষ্যে চৌকশ ও প্রশিক্ষিত নাবিকের গুরুত্ব তুলে ধরেন।

এর আগে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর প্রধান এ্যাডমিরাল এম নাজমুল হাসান কুচকাওয়াজে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে প্যারেড পরিদর্শন ও সালাম গ্রহণ শেষে কৃতিত্বপূর্ণ ফলাফল অর্জনকারী নবীন নাবিকদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন।

নৌবাহিনীর বি/২০২৩ ব্যাচের নবীন নাবিকদের মধ্যে মো.তাহাজ্জত হোসেন তপু পেশাগত ও সকল বিষয়ে সেরা চৌকশ নাবিক হিসেবে ‘নৌ প্রধান পদক’ লাভ করেন। মো.ফারদিল হোসেন দ্বিতীয় স্থান অধিকার করে ‘কমখুল পদক’ এবং আশিফুর রহমান আসিফ তৃতীয় স্থান অধিকার করে ‘শের-ই-বাংলা পদক’ লাভ করেন।

এ অনুষ্ঠানে সহকারী নৌপ্রধান (পার্সোনেল), খুলনা নৌ অঞ্চলের আঞ্চলিক কমান্ডার, বরিশাল জেলার জিওসি ৭ পদাতিক ডিভিশন ও এরিয়া কমান্ডার এবং পটুয়াখালী, বরিশাল ও খুলনা অঞ্চলের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, উচ্চপদস্থ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তাবৃন্দ এবং নবীন নাবিকদের অভিভাবকগণ উপস্থিত ছিলেন।