https://bangla-times.com/
ঢাকাসোমবার , ২৭ নভেম্বর ২০২৩
  • অন্যান্য

‘ডামি প্রার্থী’ হচ্ছেন নৌকার মনোনয়ন বঞ্চিতরা

বিশেষ প্রতিবেদক
নভেম্বর ২৭, ২০২৩ ৫:৩৩ অপরাহ্ণ । ১৮৭ জন
Link Copied!

দল মনোনয়ন দেয়নি, আওয়ামী লীগের এমন অনেকেই প্রার্থী হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। কেউ কেউ পরিস্থিতি বুঝে সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানিয়েছেন। এদিকে, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিটি আসনে ডামি প্রার্থী দেবে আওয়ামী লীগ। এই বিষয়ে ইতোমধ্যে দলের এমপিদের সাংগঠনিক নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। ক্ষমাপ্রাপ্ত দলের বহিস্কৃত নেতারাও ওই নির্বাচনে দলীয় মনোনয়নের জন্য আবেদন করার সুযোগ পাবেন।

নৌকার প্রার্থী হতে প্রতি আসনে গড়ে মনোনয়ন চেয়েছিলেন ১১ জন। নৌকা পেয়েছেন একজন। বাকি ১০ জন এখন কী করবেন, সেই আলোচনা রাজনীতির মাঠে। আর তাতে বেশ জোরেশোরে বাতাস দিচ্ছে বিকল্প প্রার্থী (ডামি) রাখার দলীয় পরামর্শ। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা আনতে দলের স্বতন্ত্র প্রার্থীদের বিদ্রোহী তকমা দেওয়া হবে না। তাই নৌকাবঞ্চিত অনেকে লড়বেন নৌকার বিপক্ষে।

কেন্দ্র থেকে জানানো হয়েছে, এবার দলের স্বতন্ত্র প্রার্থীদের বিরুদ্ধে কোনো শক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে না। ফলে এবার উল্লেখযোগ্য সংখ্যক আসনে দেখা মিলতে পারে আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থীদের।

রোববার বিকেলে ২৯৮টি আসনে প্রার্থী চূড়ান্ত করে ক্ষমতাসীন দলটি। একাদশ সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী অনেক সংসদ সদস্যকেই এবারের তালিকায় রাখেনি দলটি। বাদ পড়েছেন মন্ত্রিসভায় থাকা তিনজন প্রতিমন্ত্রী। এবার নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীক নিয়ে প্রথমবারের মতো অংশ নেবেন নব্বইজনেরও বেশি নবীন প্রার্থী।

প্রার্থী চূড়ান্ত করার আগে গণভবনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। এ সময় ২০১৪ সালের মতো বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতার নির্বাচন ঠেকাতে সব আসনেই বিকল্প প্রার্থী বা ‘ডামি প্রার্থী’ রাখার নির্দেশ দেন তিনি। এতেই নড়েচড়ে বসেছেন দলটির মনোনয়নবঞ্চিতরা। দল মনোনয়ন দেয়নি, আওয়ামী লীগের এমন অনেকেই প্রার্থী হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। কেউ কেউ পরিস্থিতি বুঝে সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানিয়েছেন।

দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের মনোনয়ন জমার শেষ দিন ৩০ অক্টোবর। এখনো বিএনপির নির্বাচনে আসার কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। বিএনপি যদি শেষ পর্যন্ত ভোটে না আসে, তাহলে ভোট যে একতরফা হবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই। তবে এবার যেন আগের মতো বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার মতো নজির তৈরি না হয়, সে জন্য নতুন এ কৌশল নিয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ।

সিলেট-৬ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন কানাডা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা ও সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সারোয়ার হোসেন। তিনি ফেসবুকে লিখেছেন, ‘নেত্রীর নির্দেশনায় আমি স্বতন্ত্র প্রার্থী হব ইনশা আল্লাহ।’

ঢাকা-৫ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হতে প্রস্তুতি নিচ্ছেন সাবেক সংসদ সদস্য হাবিবুর রহমান মোল্লার ছেলে আওয়ামী লীগ নেতা মশিউর রহমান মোল্লা। তাঁর পক্ষ হয়ে ফেসবুকে এ ঘোষণা দিয়েছেন তাঁর ভাই ও ডেমরা থানা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাহুফুজুর রহমান মোল্লা।

যশোর-২ (চৌগাছা-ঝিকরগাছা) আসনে এবার প্রথমবারের মতো মনোনয়ন পেয়েছেন চিকিৎসক তৌহিদুজ্জামান তুহিন। তিনি আওয়ামী লীগের বর্ষীয়ান নেতা তোফায়েল আহমেদের জামাতা। এ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে লড়ার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন সাবেক সংসদ সদস্য মনিরুল ইসলাম মনির।

ফরিদপুর-৪ আসনে আবারও নৌকার মনোনয়ন পেয়েছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফর উল্যাহ। এর আগে তিনি পরপর দুবার নৌকা নিয়ে হেরেছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী মজিবুর রহমান চৌধুরীর (নিক্সন) কাছে। বর্তমান সংসদ সদস্য ও যুবলীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য নিক্সন এবারও নৌকা চেয়ে পাননি।