https://bangla-times.com/
ঢাকামঙ্গলবার , ২৩ এপ্রিল ২০২৪
  • অন্যান্য

টাকাসহ পাউবোর দুই প্রকৌশলী আটক, পালিয়ে গেলো ঠিকাদার

মাসুদ রানা,পাবনা
এপ্রিল ২৩, ২০২৪ ১১:১৭ অপরাহ্ণ । ৩২ জন
Link Copied!

পাবনা পানি উন্নয়ন বোর্ডে (পাউবো) বিপুল পরিমাণ অর্থসহ দুই উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলীকে আটক করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) সকালে সাড়ে ১০টার দিকে ঠিকাদারের সাথে অবৈধ এই টাকা লেনদেনের অভিযোগে তাদের আটক করা হয়। এসময় ঠিকাদার রাজিব ও কনকসহ কয়েকজন পালিয়ে যান ।

জানা গেছে, ভুয়া প্রকল্প দেখিয়ে ঠিকাদার ও কর্মকর্তাদের যোগসাজশে বিল ভাউচারের মাধ্যমে বিপুল অর্থ আত্মসাতের অভিযোগের অনুসন্ধানে পাবনা পানি উন্নয়ন বোর্ডে যান সংবাদকর্মীরা। এ সময় তথ্য ও বক্তব্যের জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মাসুদ রানার কক্ষে গেলে ওই কক্ষ ভেতর থেকে বন্ধ পান। কয়েকবার নক করার পর মাসুদ রানা দরজা খুললে ঠিকাদার আরিফুজ্জামান রাজিব কমিশনার ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের এসডি মোশাররফসহ কয়েকজনকে দেখতে পান সংবাদকর্মীরা। এ সময় টেবিলে বিপুল অর্থ দেখা যায়। এরপর ঠিকাদার কনক সেখানে হাজির হন। সরকারি অফিসে ঠিকাদারের সাথে বন্ধ কক্ষে কিসের অর্থ লেনদেন হচ্ছে জানতে চাইলে তারা কোন সদুত্তর দিতে পারেনি।

তখন সংবাদকর্মীরা বিষয়টিকে সন্দেজনক মনে করে পুলিশকে জানালে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে পুলিশ তাদের আটক করে। এদিকে, এ ঘটনায় দু’দকও তদন্ত শুরু করেছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে গোয়েন্দা সংস্থার এক কর্মকর্তা জানান, ২০২২-২৩ ও ২০২৩-২৪ অর্থবছরে পাবনা পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) সদ্য সাবেক নির্বাহী প্রকৌশলী এবং সুনামগঞ্জের হাওড়ে বাধ নির্মাণকাজে দুর্নীতির দায়ে কয়েকবার প্রত্যাহার হওয়া নির্বাহী প্রকৌশলী আফসার উদ্দিনের তত্ত্বাবধানে মাসুদ রানা ও এসডি মোশাররফের সহযোগিতায় ডিপিএম ও আরএফকিউ পদ্ধতিতে বিভিন্ন ভূয়া প্রকল্প দেখিয়ে বিল ভাউচারের মাধ্যমে লাখ লাখ টাকা আত্মাসাত করা হয়েছে। রাফি কন্সট্রাকশনের স্বত্ত্বাধিকারি ঠিকাদার আরিফুজ্জামান রাজিব কমিশনার এবং ঠিকাদার কনকের প্রতিষ্ঠানের নামে এ টাকা উত্তোলন করা হয়েছে। বিষয়টি দীর্ঘদিন থেকে একাধিক গোয়েন্দা সংস্থা তদন্ত করছে। এসব তদন্তে অনিয়মের মাধ্যমে বিপুল অর্থ আত্মসাতের প্রমাণ মিলেছে।

এ ব্যাপারে পাবনা পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী সুধাংশু কুমার সরকার বলেন, ঘটনাটি জানতে পেরেছি। দু’দক ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বিষয়টি খতিয়ে দেখছেন। টাকা কিভাবে লেনদেন হলো, সে বিষয়ে খোঁজ নিয়ে সত্যতা পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অর্থ ও প্রশাসন) মাসুদ আলম বলেন, পাউবোর দুই কর্মকর্তাকে আটক করা হয়েছে। জব্দ করা হয়েছে টাকা। জব্দকৃত টাকা দুদকের কর্মকর্তারা গণনা করছেন। টাকার উৎস অনুসন্ধান করা হচ্ছে।