https://bangla-times.com/
ঢাকাবুধবার , ৩ জানুয়ারি ২০২৪

ঝুঁকিপূর্ণ ঢাকার ৭৮ শতাংশ ভোটকেন্দ্র

নিজস্ব প্রতিবেদক
জানুয়ারি ৩, ২০২৪ ১০:৩৬ পূর্বাহ্ণ । ১২৮ জন
Link Copied!

আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঢাকা মহানগরীর ৭৮ শতাংশ কেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ চিহ্নিত করেছে প্রশাসন। নির্বাচন ঘিরে এসব কেন্দ্রে যে কোনো সহিংসতা ঠেকাতে, ভোটের আগে-পরে টানা পাঁচ দিন বিশেষ পরিকল্পনা নিয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

নিরাপত্তায় মোতায়েন থাকবে ১৯ হাজার পুলিশ এবং ২৫ হাজার আনসার সদস্য। ঢাকা মহানগরীর ১৫টি আসনের ভোটকেন্দ্রে নির্বিঘ্ন যাতায়াতে কোনো বাধা তৈরি হবে না, বলছে ডিএমপি।

ঢাকা মহানগরীর দুই হাজার ১৪৬ কেন্দ্রের মধ্যে এমন ঝুঁকিপূর্ণ বা গুরুত্বপূর্ণ ভোটকেন্দ্র ১ হাজার ৬৬৮টি। ঘনবসতি, বস্তি এলাকা এবং বিএনপি-জামায়াতের কর্মী সমর্থকদের আধিক্য বিবেচনায় রেখেই মূলত এসব কেন্দ্র চিন্তিত করা হয়েছে। রাজধানীর শান্তিনগরে হাবিবুল্লাহ বাহার বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ কেন্দ্র এর অন্যতম।

এসব কেন্দ্রের নিরাপত্তায় বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। প্রতিটি কেন্দ্রে মোতায়েন থাকবে পুলিশের চার সদস্যের একটি টিম এবং আনসার বাহিনীর ১২ সদস্য। সেইসঙ্গে পুরো ঢাকায় দায়িত্বে থাকবে প্রায় সাড়ে চারশ মোবাইল টিম। ঢাকার সবগুলো থানায় ১০০ স্ট্রাইকিং টিম কাজ করবে।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার ড. খ. মহিদ উদ্দিন বলেন, ‘ভোটকেন্দ্রগুলোতে একটি স্কেলে স্ট্যাটিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকে। এর পরে থাকে আমাদের মোবাইল টিম, এর ওপরে থাকে স্ট্রাইকিং টিম। কয়েকটি কেন্দ্র মিলে একটি মোবাইল টিম থাকবে, আর প্রতিটি থানায় দুটি করে স্ট্রাইকিং টিম থাকবে। আর সাব কন্ট্রোলরুমগুলোতে থাকবে স্ট্যান্ড বাই।’

যে কোনো নাশকতা প্রতিহতে এবং প্রার্থীদের সংঘাত-সহিংসতা ঠেকাতে বিশেষ নজরদারি এবং গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় বিশেষ টহল থাকবে। ভোটারদের নির্বিঘ্ন ভোট দানে কোনো সংকট দেখছে না ডিএমপি।

ডিএমপি যুগ্ম কমিশনার বিপ্লব কুমার সরকার গণমাদ্যমকে জানান, জনগণ যদি বাড়ি থেকে বের হয়ে ভোটকেন্দ্রে ভোট দিতে যান, তার নিরাপত্তার সমস্ত দায়িত্ব বাংলাদেশ পুলিশের। নিরাপত্তা নিশ্চিতে যত রকমের পদক্ষেপ নেওয়া দরকার, বাংলাদেশ পুলিশ সব ধরনের পদক্ষেপই গ্রহণ করেছে।

পুলিশের পাশাপাশি ভোটের আগে-পরে টানা ১২০ ঘণ্টা সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করবেন ২৫ হাজার আনসার সদস্য।