https://bangla-times.com/
ঢাকাশুক্রবার , ১ ডিসেম্বর ২০২৩

জয় থেকে ৩ উইকেট দূরে বাংলাদেশ

ক্রীড়া প্রতিবেদক
ডিসেম্বর ১, ২০২৩ ১১:৫৯ পূর্বাহ্ণ । ১৩৭ জন
Link Copied!


সিলেটে প্রথম টেস্টে চতুর্থ দিন শেষে জয়ের সুবাস পাচ্ছে বাংলাদেশ।সফরকারী নিউজিল্যান্ড চতুর্থ দিনের খেলা শেষ করেছে ৭ উইকেট হারিয়ে ১১১ রান তুলেছে। প্রথম টেস্ট জিতে সিরিজে এগিয়ে যেতে শেষদিনে টাইগারদের দরকার ৩ উইকেট। কিউইদের দরকার আরও ২১৯ রান। বাংলাদেশের দেয়া ৩৩২ রানের লক্ষ্যে ব্যাটে নেমে পথ হারিয়েছে সফরকারী দল।

সিলেটে বল হাতে প্রথম ইনিংসের মতো দ্বিতীয় ইনিংসেও দুর্দান্ত করছেন বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল ইসলাম। ডেভন কনওয়ে-কেন উইলিয়ামসনদের আউট করে তুলে নিয়েছেন চার উইকেট। একটি করে উইকেট নিয়েছেন মেহেদী মিরাজ, নাঈম হাসান ও শরিফুল ইসলাম। ৮৬ বলে ৪৪ রানে ড্যারিল মিচেল এবং ২৪ বলে ৭ রানে ঈশ শোধি পঞ্চম দিনে খেলতে নামবেন।

বৃহস্পতিবার কিউইদের চেয়ে ৭ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করেছিল বাংলাদেশ। ৩ উইকেট হারিয়ে ২১২ রান করে তৃতীয় দিনের খেলা শেষ করেছিল টিম টাইগার্স। শুক্রবার শেষ করেছে ৩৩৮ রানে। বাংলাদেশের প্রথম ইনিংসে করা ৩১০ রানের জবাবে ৩১৭-তে থেমেছিল সফরকারীদের প্রথম ইনিংস।

টাইগারদের হয়ে তৃতীয় উইকেট তোলেন অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজ। এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারানো নিউজিল্যান্ডের অন্য ব্যাটাররা আর দাঁড়াতে পারেননি। একাই লড়েছেন ডানহাতি ড্যারিল মিচেল।

এর আগে চালকের আসনে থাকা বাংলাদেশ তৃতীয় দিনের ২০৫ রানের সাথে চতুর্থ দিনে আরও ১২৬ রান যোগ করে বাকি ৭ উইকেট হারায়। জিততে নিউজিল্যান্ডের লক্ষ্য দাঁড়ায় ৩৩২ রান। নেমে ইনিংসের শুরুতেই উইকেট হারিয়ে চাপে পড়া টিম সাউদির দল সেখান থেকে বের হতে পারেনি। বাংলাদেশের বোলাররা নিয়মিত বিরতিতে উইকেট তুলে নিয়ে কিউইদের কোণঠাসা করে রাখেন।

শুক্রবার চতুর্থ দিনে শুরুতেই ধাক্কা খায় বাংলাদেশ। দ্বিতীয় ওভারে সাজঘরের পথ ধরেন সেঞ্চুরিয়ান শান্ত। টিম সাউদির লেগ স্টাম্পের বাইরের ডেলিভারিতে খোঁচা মেরে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন টাইগার অধিনায়ক। আগেরদিনের ১০৪ রানের সঙ্গে আর ১ রান যোগ করে নিজের দ্বিতীয় ইনিংস শেষ করেন শান্ত। ১০ চারে ১৯৮ বলে ১০৪ রান আসে তার ব্যাটে। শান্তর বিদায়ে মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে ভাঙে ৯৮ রানের চতুর্থ উইকেট জুটি।

উইকেটে থিতু হতে পারেননি শাহাদাত হোসেন। ইশ সোধির বলে এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়েন, করেন ১৯ বলে ১৮ রান। দিনের শুরুতে খানিক নড়বড়ে ব্যাটিংয়েও ফিফটি তুলেছেন মুশফিক। ২৭তম ফিফটিতে পৌঁছাতে খেলেছেন ৭৯ বল। ১১৭ বলে ৭ চারে ৬৭ রানে অ্যাজাজ প্যাটেলের বলে লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়েন।

৮ রানে থাকা অবস্থায় রিভিউ নিয়ে প্রথম জীবন পান সোহান। ৯ রানে দ্বিতীয় পেলেও তা অবশ্য কাজে লাগাতে পারেননি। ফিলিপসের পরের ওভারে ১ চারে ২৭ বলে ১০ রানে সাজঘরে ফেরেন। সোধির করা বলে সহজ ক‍্যাচ দিয়ে ফিরেছেন নাঈম হাসান। ১১ বলে ৪ রান আসে তার ব্যাটে। টিকতে পারেননি তাইজুল ইসলামও। ৬ বল খেললেও রান পাননি। শেষদিকে মিরাজের সঙ্গে জুটি গড়ার চেষ্টা করেন শরিফুল ইসলাম। শেষ পর্যন্ত ৩৩৮ রানে থামে টিম টাইগার্স।

দ্বিতীয় ইনিংসে ৪ উইকেট নিয়েছেন আজাজ প্যাটেল। ঈশ শোধি দুটি ও একটি করে উইকেট নেন টিম সাউদি ও গ্লেন ফিলিপস।প্রথম ইনিংসে স্বাগতিকদের ৩১০ রানের জবাবে ৩১৭-তে থেমেছিল সফরকারী দলটি। দ্বিতীয় দিনের ৮ উইকেটে ২৬৬ রানের পর তৃতীয় দিন সকালে শেষ ২ উইকেটে ১৭.৫ ওভার ব্যাটিং করে ৫১ রান তোলে নিউজিল্যান্ড, পায় সিঙ্গেল ডিজিটের লিড। সেঞ্চুরিসহ ১০৪ রান করেন কেন উইলিয়ামসন, ৪১ রান করেন মিচেল, ৪২ রান আসে গ্লেন ফিলিপসের ব্যাট থেকে।

স্পিনার তাইজুল ইসলাম আগের দিন ৪ উইকেট দখল করলেও পঞ্চম শিকারের দেখা পাননি। কিউইদের শেষ দুই উইকেট তুলে নেয়া মমিনুল হক নেন তিন উইকেট। একটি করে উইকেট নেন নাঈম হাসান, মেহেদী হাসান মিরাজ ও শরিফুল ইসলাম।

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংসে বড় সংগ্রহের আশা জাগিয়েও ৩১০ রানে থেমেছিল। সর্বোচ্চ ৮৬ রান আসে ওপেনার মাহমুদুল হাসান জয়ের থেকে। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৭ করে রান আসে দুই বাঁহাতি নাজমুল হোসেন শান্ত ও মমিনুল হকের থেকে। শেষ দিকে টেল এন্ডারদের দৃঢ়তায় দ্বিতীয় দিনের প্রথমদিকে ৩১০ রানে অলআউট হয় শান্তর বাংলাদেশ।

পার্টটাইম অফস্পিনার গ্লেন ফিলিপস একাই নেন ৪টি উইকেট। ২টি করে উইকেট নেন অ্যাজাজ প্যাটেল ও কাইল জেমিসন।