https://bangla-times.com/
ঢাকামঙ্গলবার , ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

কোটা খালি রেখেই শেষ হজ নিবন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক
ফেব্রুয়ারি ৬, ২০২৪ ৬:৩০ অপরাহ্ণ । ৭২ জন
Link Copied!

পাঁচ দফা সময় বাড়ানোর পরও কোটা খালি রেখে শেষ হলো হজের নিবন্ধন কার্যক্রম। কোটা পূরণ না হওয়ার জন্য অতিরিক্ত খরচকে দায়ী করছেন হজযাত্রীরা। বাকি কোটা সৌদি আরবকে ফেরত দেয়া হবে বলে জানিয়েছে ধর্মমন্ত্রণালয়। এজেন্সিগুলো বলছে, এর আগে এত সংখ্যক কোটা কখনও খালি থাকেনি।

হজের আকাশ ছোঁয়া ব্যয় চলে গেছে সাধারণ মানুষের নাগালের বাইরে। ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও হজপালন করতে পারছেন না অনেকে। ফলে হজপালনের স্বপ্ন। থেকেই যাচ্ছে।

২০২৩ সালে সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ প্যাকেজ ৬ লাখ ৮৩ হাজার এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৬ লাখ ৭২ হাজার টাকা নির্ধারণ হয়। অথচ গতবারের তুলনায় এবার প্যাকেজের দাম ৯২ হাজার ৪৫০ টাকা কমানো হয়েছে। এরপরও হজযাত্রীদের হিমশিম খেতে হচ্ছে খরচ মেটাতে।

তথ্যমতে, এখনো প্রাক-নিবন্ধন করা আছে প্রায় ১ লাখ মানুষের। এজেন্সিগুলো বলছে, বারবার তাদের ফোন করার পরও শুধু খরচের কারণে সাড়া মিলছে না।

এক হজ এজেন্সির কর্মকর্তা বলেন, গত বছর আমার ২৩৫ জন হাজী ছিল। এ বছর সে তুলনায় হাজী অনেক কম। আমাদের এখন পর্যন্ত ৯৪ জন কনফার্ম হয়েছে। অনেক হজ এজেন্সি আছে যারা তাদের লাইসেন্সগুলো বিক্রির চেষ্টা করছে। কারণ লাইসেন্স পেলেই তো হবে না। প্রতিবছর এগুলো রিনিউ করতে হয়, অনেক টাকা খরচ হয়।

হাব সভাপতি শাহাদাত হোসাইন তসলিম বলেন, ২০২২ সালে তো সামান্য সংখ্যক গেছে। ২০২৩ সালে আমরা ২ হাজার ৩০০ কোটা আমরা পূর্ণ করতে পারিনি। কিন্তু ২০২৪ এ এসে এখনও পর্যন্ত দেখা যাচ্ছে ৪০ হাজারের উপরে কোটা খালি থাকবে।

ধর্ম মন্ত্রণালয় সাফ জানিয়েছে, নিবন্ধনের সময় আর বাড়ছে না। অবশিষ্ট কোটা ফেরত দেওয়া হবে সৌদি আরবকে।

মন্ত্রণালয়ের হজ অনুবিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো: মতিউল ইসলাম বলেন, ‘ওই কোটা আমরা ফেরত দিয়ে দেবো। আগেও এমন হয়েছে, আমাদের কোটার কোনো সমস্যা নাই। কত হাজযাত্রী গেলো এটার ভিত্তিতে কোটা দেয় না। কোটা দেয় মুসলিম জনসংখ্যার ভিত্তিতে।

হজ ফ্লাইট শুরু হওয়ার কথা রয়েছে ৯ মে থেকে। চাঁদ দেখা সাপেক্ষে হজ হবে ১৬ জুন।