https://bangla-times.com/
ঢাকাসোমবার , ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
  • অন্যান্য

কে হচ্ছেন নওগাঁ-২ আসনের এমপি

নওগাঁ প্রতিনিধি
ফেব্রুয়ারি ১২, ২০২৪ ১:০৩ পূর্বাহ্ণ । ৮৬ জন
Link Copied!

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে স্থগিত হওয়া নওগাঁ-২ (পত্নীতলা-ধামইরহাট) আসনে ভোটগ্রহণ সোমবার (১২ ফেব্রুয়ারি) অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনের একজন স্বতন্ত্র প্রাথী মোঃ আমিনুল হক-এর মৃত্যুজনিত কারনে গত ৭ জানুয়ারী আসনটিতে ভোটগ্রহণ স্থগিত ঘোষনা করে নির্বাচন কমিশন।

জেলার পত্নীতলা ও ধামইরহাট উপজেলা নিয়ে নওগাঁ-২ আসন। মোট ১৯ ইউনিয়ন এবং ২ পৌরসভা মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৫৩ হাজার ১শ ৩২ জন। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৭৭ হাজার ৫শ ৭২ জন, মহিলা ভোটার ১ লাখ ৭৮ হাজার ৫শ ৫৯জন এবং হিজড়া ভোটার ১ জন।

এই আসনে মোট ১২৪টি কেন্দ্রে ৭০৬টি কক্ষে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। ভোট গ্রহণের জন্য মোট ৮৩০ জন কর্মকর্তা নিয়োজিত করা হয়েছে। এদের মধ্যে ১২৪ জন প্রিজাইডিং অফিসার এবং ৭০৬ জন সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার।

জেলা প্রশাসক মো. গোলাম মওলা জানিয়েছেন, গত ৭ জানুয়ারী’র মত এই নির্বাচনও সুষ্ঠু অবাধ ও নিরপেক্ষ করতে সর্বাত্মক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। পরিস্থিতি খুবই সন্তোষজনক রয়েছে। কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনার কোন সম্ভাবনা নেই। জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন সমন্বিতভাবে কাজ করছে।

উপজেলার সহকারি রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে প্রিজাইডিং কর্মকর্তারা এসে নির্ধারিত পয়েন্ট থেকে বুঝে নেয় সরঞ্জামাদি। তারপর পুলিশ ও আনসার ভিডিপির সদস্যদের পাহারায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে নির্ধারিত কেন্দ্রে।

জেলা নির্বাচন অফিসার মোঃ তারিফুজ্জামান বলেন, সুষ্ঠুভাবে ভোট গ্রহণ সম্পন্ন ও নিরাপত্তার দায়িত্বে বিপুল সংখ্যক এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট, জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ছাড়াও গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে ও সাধারণ কেন্দ্রে পুলিশ, আনসার, পুলিশের মোবাইল টিম, স্ট্রাইকিং টিম ও চেকপোস্ট নিয়মিত কাজ করছে। আশা করছি শান্তিপূণভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

পুলিশ সুপার মুহাম্মদ রাশিদুল হক জানিয়েছেন, এই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে জেলার এই দুই উপজেলাকে নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে ফেলা হয়েছে। কারন গত ৭ জানুয়ারী সারাদেশের সাথে পুরো জেলায় একসাথে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সে তুলনায় মাত্র একটি আসনে নির্বাচন হওয়ায় নিরাপত্তা অনেক গুন হয়েছে।

তিনি জানান, প্রতিটি কেন্দ্রে ৪ জন তরে পুলিশ সদস্য থাকবে। প্রতিটি কেন্দ্রেই মোবাইল টীম নিয়োজিত থাকবে। প্রতিটি ইউনিয়নেই একজন করে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট দায়িত্ব পালন করবেন। এই দুই উপজেলায় মোট ৮ প্লাটুন বিজিবি সদস্য নিয়োজিত থাকবে। এ ছাড়াও প্রয়োজনীয় সংখ্যক আনসার সদস্যও নিয়োজিত থাকবে।

এই আসনে মোট ৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। প্রার্থীরা হলেন-আওযামী লীগ মনোনীত নৌকা মার্কা প্রতীক নিয়ে বর্তমান এমপি মোঃ শহিদুজ্জামান সরকার, জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী লাঙ্গল মার্কা প্রতীকে এ্যাডভোকেট মোঃ তোফাজ্জল হোসেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী ট্রাক মার্কা প্রতীকে এইচ এম আখতারুল আলম এবং আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী ঈগল পাখি মার্কা প্রতীকে মোঃ মেহেদী মাহমুদ রেজা।