https://bangla-times.com/
ঢাকাবুধবার , ৬ ডিসেম্বর ২০২৩
  • অন্যান্য

তিন ফসলী জমির মাটি ইটভাটায়, উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা

নিজস্ব প্রতিবেদক,ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ডিসেম্বর ৬, ২০২৩ ১:৪২ অপরাহ্ণ । ৯২ জন
Link Copied!

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে সরকারি নিয়মনীতি তোয়াক্কা না করেই প্রকাশ্যে দিনের বেলায় অবৈধভাবে স্কেভেটর দিয়ে তিন ফসলী জমি গভীর গর্ত করে মাটি ইটভাটায়,বিক্রির মহাৎসব চলছে।

উপজেলার শাহাজাদাপুর ইউনিয়নের রাজাবাড়িয়া কান্দি এলাকায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সঙ্গে দক্ষিণে মেসার্স মায়ের দোয়া ব্রিকস ফিল্ডটির অবস্থান।

সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে,অবৈধভাবে স্কেভেটর দিয়ে তিন ফসলী জমি গভীর গর্ত করে অবৈধ ট্রাক্টর ধারা প্রকাশ্যে মাটি মেসার্স মায়ের দোয়া ব্রিকস ফিল্ডে নিচ্ছেন।এছাড়াও উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অবৈধ ভাবে তিন ফসলি জমিতে গভীর গর্ত করে পুকুর খনন ও ফসলী জমি,পুরাতন পুকুর ভরাটসহ মাটি ইটভাটায় দিচ্ছে মাটি ব্যবসায়ীরা।ফলে ফসলী জমিগুলো আবারো হুমকির মধ্যে পড়েছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে,নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে জনবসতি ও কৃষি জমির পাশে খোলা জায়গায় ইটের ভাটার ফলে মারাত্মক ক্ষতি করছে পরিবেশের। এছাড়া এসব ভাটার মাটি ফসলি জমি থেকে সংগ্রহ করার কারণে আবাদী জমির উর্বরতা নষ্ট হচ্ছে।
স্থানীয় বাসীন্দারা বলেন,কিছু কিছু ইটভাটায় দিনের পরিবর্তে রাতভর চলে তাদের মাটি কাটার মহোৎসব। ভোর হলেই মাটি কাটার যন্ত্রটিও সরিয়ে রাখা হয় অন্যত্র। এভাবেই চলছে ফসলি জমি থেকে মাটি কাটার কর্মযঞ্জ। দেখার যেন কেউ নেই। এভাবে চলতে থাকলে ফসলি জমি হ্রাস পেয়ে খাদ্য উৎপাদনে ঘাটতি দেখা দিবে।

আরোও বলেন,ফসলি জমির মাটি কাটার ফলে আমাদের পাশের জমি গুলো হুমকির মুখে পড়েছে।আমরা প্রতিবাদ করলেও তারা আমাদের কে উল্টো হুমকি প্রদান করে।পরে প্রশাসনকে ম্যানেজ করে ফসলি জমি কাটা শুরুি করেন। এ অবৈধ মাটি কাটা বন্ধে উপজেলাবাসী সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

কৃষি বিশেষজ্ঞরা বলছেন,ফসলি জমি থেকে মাটি উত্তোলন করায় গভীর গর্ত হয়ে জমি গুলো পুকুরে রুপান্তরিত হচ্ছে,যার ফলে পাশের জমি গুলো ভেঙ্গে হুমকির মুখে পড়েছে।যে ভাবে ফসলি জমি কেটে মাটি উত্তোলনের হিড়িক চলছে,এতে দ্রুত অবৈধ ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ না নিলে আগামীতে খাদ্য ঘাটতিসহ ফসলি জমি হুমকির মুখে পড়বে এবং পাশের ফসলি জমির ক্ষতি হবে ।
এ ব্যাপারে সরাইল উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নাছরিন সুলতানা বলেন,আমি এবিষয়ে অবগত নই।আপনার মাধ্যমে অবগত হয়েছি এ বিষয়ে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আবাদী ফসলী জমিতে মাটি কাটা খবর পেলেই আমরা সাথে সাথেই অভিযান পরিচালনা করি।জনস্বার্থে ও জনসচেতনতায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও তিনি জানান।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দুইশত কৃতি শিক্ষার্থীকে শিক্ষা বৃত্তি প্রদান করা হয়েছে। আজ শনিবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সমিতি ঢাকা’র উদ্যোগে ইউনির্ভাসিটি অব ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ক্যাম্পাস প্রাঙ্গনে এই মেধাবৃত্তি প্রদান করা হয়।


মেধাবৃত্তি প্রদান উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন স্থানীয় সংসদ সদস্য, বেসামরিক বিমান পরিবহন পর্যটন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সমিতি ঢাকা’র সভাপতি র.আ.ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী। মেধাবৃত্তি প্রদান উপ-কমিটি-২০২৩-এর আহবায়ক মোঃ আবদুল হামিদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশনের সদস্য ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সমিতি ঢাকা’র সাধারণ সম্পাদক মোঃ খলিলুর রহমান, সমিতির সহ-সভাপতি ও গণপূর্ত অধিদপ্তরের সাবেক প্রধান প্রকৌশলী কবির আহম্মেদ ভূঞা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার মেয়র মিসেস নায়ার কবির প্রমুখ।


প্রধান অতিথির বক্তব্যে র.আ.ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপি বলেন, মাদক সমাজের বিভিন্ন স্তরে ছড়িয়ে পড়েছে। মাদকের গ্রাস থেকে আমাদের ছেলে-মেয়েদেরর রক্ষা করতে হবে। সন্তানের প্রতি অভিভাবকদের খেয়াল রাখতে হবে। মাদককে প্রতিহত করতে হবে। এক্ষেত্রে শিক্ষা, ক্রীড়া ও বিনোদনের কোনো বিকল্প নেই। আমাদের ছেলে-মেয়েদেরকে সুশিক্ষায় শিক্ষিত করতে হবে। তাহলেই এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ।


তিনি বলেন, বাংলাদেশে এখন নারী শিক্ষা অনেক দূর এগিয়ে গেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, নারীরা এগিয়ে গেলেই দেশ এগিয়ে যাবে। তাই বলে যে ছেলেদের জন্য নয় তা ঠিক নয়। আমরা চাই ছেলে মেয়ে একসাথে তালে তাল মিলিয়ে চলবে। তাহলেই আমাদের দেশ দ্রæত উন্নয়ন হবে। পরে প্রধান অতিথি ও অন্যান্য অতিথিগন ২০২২ সালে এস.এস.সি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত দুইশত কৃতি শিক্ষার্থীর হাতে নগদ ৫ হাজার টাকার শিক্ষাবৃত্তি, ফুল,সনদসহ শিক্ষা সামগ্রী তুলে দেন।